সোমবার , ১৬ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » ভূমিকম্পে নেপালে নিহত ১৫০০ ছাড়িয়েছে, ভারতে ৫৩ (ভিডিও)

ভূমিকম্পে নেপালে নিহত ১৫০০ ছাড়িয়েছে, ভারতে ৫৩ (ভিডিও)

Nepalভয়াবহ ভূমিকম্পে নেপালে নিহতের সংখ্যা ১,৫০০ ছাড়িয়েছে। সবশেষ খবরে টাইমস অব ইন্ডিয়া এ তথ্য জানিয়েছে। প্রাণহানির সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

দেশটিতে দুই দফা ভূকম্পন অনুভূত হয়। প্রথমটির মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৯ এবং দ্বিতীয়টি ছিল ৬ দশমিক ৬ মাত্রার। যুক্তরাষ্ট্রের জিওলজিক্যাল সার্ভে এ তথ্য জানিয়েছে।

শনিবার সকালে রাজধানী কাঠমান্ডু ও পোখারায় ওই ভূমিকম্প আঘাত হানে। এতে বেশ কিছু ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা গুঁড়িয়ে যায়, ধসে যায় অনেক ভবন ও স্থাপনা। এর আধাঘণ্টা পর ফের আরেকটি ভূমিকম্প লামজাঙে আঘাত হানে।

মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, শনিবার সকালে নেপালের পোখরা থেকে ৮০ কিলোমিটার পূর্বে ওই ভূমিকম্পের উৎপত্তি হয়। ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল ভূপৃষ্ঠের ৩১ কিলোমিটার গভীরে।

নেপালি পুলিশের ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল কমল সিং বাম জানিয়েছেন, ভূমিকম্পে বহু হতাহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা গণনার প্রক্রিয়া চলছে।

 

এদিকে নেপালে আঘাত হানা ভূমিকম্পের প্রভাব পড়েছে পাশের ভারত ও বাংলাদেশে এবং চীনের তিব্বতে। ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিসহ দেশটির কলকাতা, লক্ষ্ণৌ, রাঞ্চি, জয়পুর, গোহাটি, উত্তরপ্রদেশসহ বিভিন্ন এলাকায় ভূকম্পন অনুভূত হয়।

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানেও জোরালোভাবে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতির খবর আসছে।

ভারতে নিহত ২০

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ভারতের ভূমিকম্পে নিহত হয়েছে ৫০ জন, তিব্বতে ১২ জন।
নয়াদিল্লিসহ ভারতের পুরো সীমান্ত এলাকাজুড়ে ভূ-কম্পন অনুভূত হয়। পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও সিকিমেও এ কম্পন অনুভূত হয়। দেশটির বিভিন্ন স্থান থেকে হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যাচ্ছে।

ভারতের দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, বিহার, ঝাড়খন্ড, হিমাচল প্রদেশ, পাঞ্জাব, আসাম ও রাজস্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়। পশ্চিমবঙ্গেও তীব্রভাবে অনুভূত হয়েছে ভূমিকম্প। ভূমিকম্পের কারণে কলকাতার পাতাল রেল চলাচল ১৫ মিনিট বন্ধ ছিল।
মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে জানানো হয়, ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে ৮১ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে। এর গভীরতা ছিল ১৫ কিলোমিটার। রিখটার স্কেলে এর তীব্রতা ছিল ৭ দশমিক ৯।
ভূমিকম্পে কাঠমান্ডু ও পোখারায় জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কাঠমান্ডুর প্রসিদ্ধ দারাহারা ভবনটি ধসে পড়েছে। ভবনের ধ্বংসস্তূপে অন্তত ৫০ জন আটকা পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে খবরে জানানো হয়, ভূমিকম্প ৩০ সেকেন্ড থেকে দুই মিনিট পর্যন্ত স্থায়ী হয়। এতে কাঠমান্ডুতে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। ঐতিহাসিক ভবন ধসে গেছে। হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতির পূর্ণাঙ্গ চিত্র ধীরে ধীরে স্পষ্ট হবে।

এ ছাড়া বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাসহ প্রায় সারা দেশে ভূকম্পন অনুভূত হয়েছে। বাংলাদেশে নিহত হয়েছে পাঁচজন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print