শনিবার , ১৮ আগস্ট ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » ওয়াশিকুর ও অভিজিৎ হত্যার মধ্যে যোগসূত্র খোঁজা হচ্ছে’ –

ওয়াশিকুর ও অভিজিৎ হত্যার মধ্যে যোগসূত্র খোঁজা হচ্ছে’ –

imagesঅনলাইন এ্যাক্টিভিস্ট ওয়াশিকুর রহমান বাবু হত্যায় জড়িতদের সঙ্গে অভিজিৎ হত্যার আসামিদের ক্লু খোঁজা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যুগ্ম-কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম।

তিনি আরও বলেন, ‘যে সকল ব্লগারকে আগে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে, সেখানে ওয়াশিকুরের নাম ছিল না। শুধু ব্লগার নয় রাজধানীর নাগরিকদের নিরাপত্তা দিতে বদ্ধপরিকর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। এ ছাড়াও হত্যাকারীদের ধরিয়ে দিতে কেউ সাহায্য করলে তাকে পুরস্কৃত করার কথা চিন্তা করছে ডিএমপি।’

রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে মঙ্গলবার বিকেলে সাংবাদিকদের এ কথা জানান যুগ্ম-কমিশনার।

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘ওয়াশিকুর হত্যায় রিমান্ডে থাকা আসামিদের অভিজিৎ হত্যার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এটাই তাদের প্রথম ও একমাত্র হত্যা। তারা সবাই মাদ্রাসা ছাত্র এবং একে-অপরকে আগে থেকে চিনত না।’

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘মাসুম নামে যে ব্যক্তি গ্রেফতারদের ওয়াশিকুরের ছবি দেখিয়েছে তিনি আসলে কে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, তার প্রকৃত নাম মাসুম না। এ হত্যাকাণ্ডে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গ্রেফতারদের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। রিমান্ডে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে অনেক রহস্যের জট খুলবে বলে আশা করা হচ্ছে।’

ডিবির যুগ্ম-কমিশনার বলেন, ‘গ্রেফতার আরিফুল এর আগে নরসিংদীতে জেএমবির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল। তিনি মিরপুরের দারুল উলুম মাদ্রাসার ছাত্র। জিকরুল্লাহ চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে ঢাকায় এসেছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া অন্য ব্লগার হত্যাকাণ্ডে কারা জড়িত তাও গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

পরিকল্পনাকারী মাসুম ও পলাতক আবু তাহেরকে গ্রেফতার করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীর তেজগাঁওয়ের দক্ষিণ বেগুনবাড়িতে সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাসা থেকে বের হওয়ার পর ওয়াশিকুর রহমান বাবুকে (২৬) দিন-দুপুরে রাস্তায় চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে আবু তাহের, জিকরুল্লাহ (২০) ও আরিফুল ইসলাম (১৯) নামে তিন তরুণ। পুলিশ তাৎক্ষণিক ধাওয়া দিয়ে ঘটনাস্থলের কিছু দূর থেকে জিকরুল্লাহ ও আরিফুলকে আটক করে। তবে আবু তাহের পালিয়ে যায়।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print