সোমবার , ২৫ জুন ২০১৮
মূলপাতা » অন্যান্য » আদালতে নেয়া হয়নি মির্জা ফখরুলসহ ২৯ নেতাকে

আদালতে নেয়া হয়নি মির্জা ফখরুলসহ ২৯ নেতাকে

indexসচিবালয়ে ককটেল বিস্ফোরণের মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ২৯ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়েছে। আগামি ৭ জুন এ সংক্রান্তে শুনানির জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন আদালত।
মঙ্গলবার ঢাকার ৫ নম্বর মহানগর বিশেষ ট্রাইব্যুনালে এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের জন্য দিন ধার্য ছিল। তবে নিরাপত্তাজনিত কারণে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও যুবদলের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কামরুজ্জামান রতনসহ অন্য নেতাদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়নি। রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করতে সময়ের আবেদন করে। এছাড়াও এ মামলার আসামি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আসম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, যুগ্ম-মহাসচিব আমানউল্লাহ আমানসহ অন্যদের পক্ষে সময় চেয়ে আবেদন করা হয়।
শুনানি শেষে সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারক মো. রুহুল আমিন অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেন। ২০১২ সালের ২৬ আগষ্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত সকল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন। একই বছরের ৩০ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক তপন চন্দ্র সাহা বিস্ফোরক আইনের ৩/৩-ক ও ৬ ধারায় অভিযুক্ত করে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।
মির্জা ফখরুল ছাড়া অভিযোগপত্রের অপর ২৮ আসামি হলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, যুগ্ম-মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, রুহুল কবির রিজভী, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমদ, ঢাকা মহানগর বিএনপির তত্কালীন সদস্য সচিব আব্দুস সালাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, যুবদলের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নীরব, সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া, শাম্মী আক্তার শিফা, রেহানা আক্তার রানু, নীলুফার চৌধুরী মনি, ছাত্রদলের তত্কালীন সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক আব্দুল মতিন, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, যুবদলের সহ-দপ্তর সম্পাদক কামরুজ্জামান দুলাল, বিএনপির সাবেক নির্বাহী কমিটির সদস্য কামরুজ্জামান রতন, মোরতাজুল করিম বাদল, রেহানা আক্তার ডলি ওরফে রেহানা ইয়াসমিন ডলি ও মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া ওরফে বাদল।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print