বুধবার , ১৫ আগস্ট ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » রাষ্ট্রীয় সম্মান দেয়া হবে টাইগারদের

রাষ্ট্রীয় সম্মান দেয়া হবে টাইগারদের

1975077_800150233402874_500320162413768593_n২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে সহ-আয়োজক হলেও কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। চারবার অংশ নিয়ে বাংলাদেশ শেষ আটে খেলতে পারেনি একবারও।

২০১৫ সালে পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নেন টাইগাররা। এবারের বিশ্বকাপের যৌথ আয়োজক অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। ঘরের মাঠে যা সম্ভব হয়নি সেই দলের কাছে কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্নটা আকাশচুম্বী। কিন্তু সেই অসম্ভব ও অবাস্তব কাজটি করে দেখিয়েছে বাংলাদেশ। আকাশটাকে ছুঁয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

যে লক্ষ্য নিয়ে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে গিয়েছিল বাংলাদেশ, সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে। এক কথায় সফল বিশ্বকাপ মিশন। আফগানিস্তান ও স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয় ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দাপুটে জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখায় বাংলাদেশ। কোয়ার্টারের স্বপ্ন পূরণ করে শেষ চারের পথে ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছিল মাশরাফির দল। কিন্তু আম্পায়ারদের বিতর্কিত কয়েকটি সিদ্ধান্ত ও ভারতের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করায় স্বপ্নভঙ্গ হয় লাল-সবুজ জার্সিধারীদের।

যে মার্চ মাসে বাংলাদেশ দুবার ভারতকে হারিয়েছিল সেই মার্চে এবারও মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-ভারত। কিন্তু ভাগ্যের নির্মমতায় কপাল পোড়ে বাংলাদেশের। মাঠের লড়াইয়ে বাংলাদেশ টেক্কা দিলেও মাঠের বাইরে ‘টেবিলের খেলায়’ হেরে গেছে! এক হিসেবে বাংলাদেশ হারেনি।

বিশ্বকাপ খেলুড়ে প্রায় প্রতিটি দেশের বর্তমান কিংবা প্রাক্তন ক্রিকেটাররা বাংলাদেশের পরাজয়কে দুঃখজনক বলেছেন। ভারত যে বাংলাদেশের বিপক্ষে ধুঁকে ধুঁকে জিতেছে তা নিয়েও সমালোচনা করেছেন। অনেকেই বলেছেন, যোগ্য দল হিসেবে ভারতের পরিবর্তে সেমিফাইনালের যোগ্য বাংলাদেশ।

এক কথায় এবারের বিশ্বমঞ্চে টিম বাংলাদেশ পুরো বিশ্বের নজর কেড়েছে। ক্যামেরার সব ফ্ল্যাশ বারবার খুঁজেছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের। এক মাসেরও বেশি সময় অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে বিশ্ব ক্রিকেট মঞ্চ কাঁপিয়ে রোববার সন্ধ্যায় দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল।

রোববার ঢাকায় ফিরে বিমানবন্দরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ছোট্ট পরিসরের সংবর্ধনা পেয়েছে বাংলাদেশ। ফুল আর মিষ্টি দিয়ে মাশরাফিদের বরণ করে নেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান জাহিদ আহসান রাসেল এবং আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আনিসুল হকও।

শুধু বিসিবির কর্মকর্তা কিংবা ক্রীড়াসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরাই নন, অগণিত ক্রিকেটপ্রেমী বিমানবন্দর এলাকায় উপস্থিত থেকে টাইগারদের সাফল্যগাঁথার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন। এখানেই শেষ নয়। বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সে গোটা বাংলাদেশ গর্বিত। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও বাংলাদেশের মানুষের মুখে হাসি এনে দিয়েছেন মাশরাফিরা।

বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, বিশ্বকাপ শেষে বাংলাদেশ দলকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সংবর্ধনা দেয়া হবে। ২৯ মার্চ বিশ্বকাপের পর্দা নামবে। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে মাশরাফিদের এ সংবর্ধনা দেওয়া হবে। এখনো দিনক্ষণ ঠিক না হলেও জানা গেছে, এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহেই সংবর্ধনার আয়োজন করতে চায় বিসিবি।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print