শনিবার , ২৩ জুন ২০১৮
মূলপাতা » ক্রিকেট » শেষ আফ্রিদি-মিসবাহর অধ্যায়!

শেষ আফ্রিদি-মিসবাহর অধ্যায়!

2079151পাকিস্তানের অন্যতম দুই সেরা তারকা শহিদ আফ্রিদি এবং মিসবাহ-উল হক আগেই ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন বিশ্বকাপের পর ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে বিদায় নেবেন। আফ্রিদি টেস্ট ক্রিকেট ছেড়েছেন অনেক আগেই। তবে মিসবাহ আরও কিছুদিন সাদা পোশাকে খেলা চালিয়ে যাবেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে শুক্রবার চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হলো মিসবাহ-আফ্রিদির পাকিস্তান। পাকিস্তানকে ৬ উইকেটে হারিয়ে তৃতীয় দল হিসেবে সেমিফাইনালের টিকিট পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ফলে কোয়ার্টার ফাইনালের এই ম্যাচটিই হতে পারে আফ্রিদি ও মিসবাহ-উল হকের শেষ ম্যাচ।

গত ৪ বছর ধরে পাকিস্তান জাতীয় দলকে ওয়ানডেতে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন মিসবাহ-উল হক। তার অধিনায়কত্বে অন্য যে কোনো সময়েরে চেয়ে বেশি সুশৃঙ্খল মনে হয়েছে পাকিস্তানকে। ওয়ানডে ক্রিকেটে এখনও পর্যন্ত সেঞ্চুরির দেখা না পেলেও অবিসংবাদিবভাবেই গত ৫ বছর ধরে মিসবাহই পাকিস্তানের সেরা ব্যাটসম্যান। দলকে বহু ম্যাচে বিপদ থেকে উদ্ধার করেছেন, দেখিয়েছেন জয়ের পথও।

চলতি বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের ৬ ইনিংসে ৪টি হাফ সেঞ্চুরি করে দলের ব্যাটিং স্তম্ভ হিসেবে নিজেকে ফের প্রমাণ করেছেন। বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীদের তালিকায় উঠে এসেছেন সেরা দশে। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডে ক্রিকেটে সেঞ্চুরি ছাড়া  ৫ হাজার রান পূর্ণ করেছেন।

৪১ বছর বয়সেও যেভাবে ব্যাট করে যাচ্ছেন তাতে করে হয়তো আরও কয়েক বছর ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যেতে পারতেন মিসবাহ। তবে তরুণদের জায়গা করে দেয়ার এটাই সেটা সময় ভেবে ক্যারিয়ারের ইতি টানার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

অন্যদিকে শহিদ খান আফ্রিদি বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করেছেন। ওয়ানডে ক্রিকেটে তার এমন কিছু কীর্তি আছে যার ধারে কাছে নেই কেউ। একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডেতে ৩৫০টি ছক্কা মেরেছেন।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা সনাথ জয়সুরিয়া ছক্কা ২৭০টি। বর্তমানে খেলছেন এমন খেলোয়াড়দের মধ্যে ক্রিস গেইল ২৩০ ও ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ১৯১টি ছক্কা নিয়ে তার চেয়ে অনেক দূরে রয়েছেন। কমপক্ষে ৫ হাজার রান করেছেন এমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে স্ট্রাইক রেটে সবার ওপরে আফ্রিদি। ১১৬ স্ট্রাইক রেট নিয়ে সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন তিনি।

৩৯৮তম ম্যাচ খেলতে শুক্রবার মাঠে নেমেছেন। আর কয়েকটি ওয়ানডে ম্যাচে অংশ নিলে এমন উচ্চতায় উঠবেন যেখানে আসীন হওয়ার স্বপ্নও হয়তো দেখেন না কোনো ক্রিকেটার। ৩৯৭ ম্যাচে ৩৯৫ উইকেট নিয়ে ৪০০ উইকেট থেকে ৫ কদম দূরে রয়েছেন আফ্রিদি। ওয়ানডেতে ৮ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন এর আগেই। আর ৫ উইকেট পেলে ৮ হাজার রান ৪০০ উইকেটের ডাবলস’র রেকর্ড গড়বেন ‘বুম বুম’ আফ্রিদি। যেখানো আর কোনো ক্রিকেটারের পদার্পণ ঘটেনি।

উইকেট সংখ্যায় শহিদ আফ্রিদি অন্য অনেক গ্রেট বোলারের চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রহকারীদের তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছেন তিনি। ৫ উইকেট বেশি নিয়ে তার ওপরে রয়েছেন শ্রীলংকান সাবেক তারকা চামিন্দা ভাস। এছাড়া মুত্তিয়া মুরালিধরন, স্বদেশি দুই বোলিং গ্রেট ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিস তার ওপরে রয়েছেন। আফ্রিদি পেছনে ফেলেছেন শন পোলক, গ্লেন ম্যাকগ্রা, ব্রেট লি ও অনিল কুম্বলেদের মতো গ্রেট বোলারদের।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print