রবিবার , ২২ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » আশা ছাড়ছেন না বুলবুল-সুমনরা

আশা ছাড়ছেন না বুলবুল-সুমনরা

02_0বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হাবিবুল বাশার একবার বলেছিলেন— তার জীবনের শ্রেষ্ঠতম অভিজ্ঞতা ২০০৭ বিশ্বকাপ। যদিও সেই বিশ্বকাপের পর দেশের সর্বকালের অন্যতম সেরা এই অধিনায়কের ক্যারিয়ার হঠাত্ করেই ছোট হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ব্যক্তিগত সেসব ঘটনা নয়, হাবিবুলের স্মৃতিতে এখনও জাগরুক সেই বিশ্বকাপের দলীয় অসামান্য অর্জন। এতোদিন পর আবার ২০০৭ বিশ্বকাপের মতোই সামনে ভারত এসে যাওয়াতে হাবিবুলকে বারবার
কথা বলতে হচ্ছে পুরোনো স্মৃতি নিয়ে।
হাবিবুল পরিষ্কার বলছেন, তিনি মনে করেন আরেকবার ভারতকে হারানোর ক্ষমতা বর্তমান দলটির আরও বেশী আছে। শুধু হাবিবুল নন, কলকাতার একটি পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাতকারে বাংলাদেশ দলের ওপর একই ধরনের ভরসা রাখলেন জাতীয় দলের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিয়ান ও প্রথম বিশ্বকাপের অধিনায়ক আমিনুল ইসলাম বুলবুলও।
হাবিবুল বলছিলেন, ২০০৭ বিশ্বকাপের সঙ্গে এবারের বিশ্বকাপের একটা অসাধারণ মিল অন্তত দেখছেন তিনি, ‘সেটাও এ বারের মতো হারলেই বিদায় টাইপের ম্যাচ ছিল। আক্ষরিক অর্থে হয়তো ওটা নক আউট নয়, গ্রুপ লিগের ম্যাচ ছিল। কিন্তু দুটো টিম জানত আসলে নক আউটই। তাই হয়েছিল পরে গিয়ে। তবে সে বারের ইন্ডিয়ান টিমটা এটার চেয়ে অনেক স্ট্রং ছিল।’
বরং সেবারের বাংলাদেশ দলের চেয়ে সাবেক এই অধিনায়ক এগিয়ে রাখছেন বর্তমান বাংলাদেশ দলটাকেই, ‘এ বারেরটা অবশ্যই এগিয়ে। এই টিমটা অনেক বেশি ম্যাচিওর্ড। ম্যাচ জেতানো পারফর্মারও এই দলে বেশি। এই টিমটার সবচেয়ে বড় গুণ হল প্রেশার সামলাতে জানে। আফগানিস্তানের দিন কম রানে চার উইকেট চলে যাওয়ার পর ঠিক লড়াই করে তিনশোর ওপর তুলে দিয়েছে। ইংল্যান্ডের দিন চাপ এসেছে ভয়ঙ্কর রকম। তবু ভেঙে পড়েনি। আমার তো মনে হয় এই অ্যাটিটিউড নিয়ে ইন্ডিয়াকে ওরা ভাল ফাইট দেবে। যেই জিতুক কাজটা কারওর সহজ হবে না।’
আমিনুল ইসলাম বুলবুল অবশ্য সুমনের মতো এতোটা পরিষ্কার করে বাংলাদেশকে চাপমুক্ত বলে খুব সুবিধার অবস্থায় দেখছেন না। তিনি বরং দু দলকেই সমান অবস্থানে দেখছেন কোয়ার্টার ফাইনালে, ‘কারণ নকআউট ম্যাচে একটা আধ ঘণ্টা ম্যাচের রং বদলে দিতে পারে। সেটা কোহলির কয়েকটা স্ট্রোক যেমন হতে পারে। তেমন রুবেলের একটা স্পেলও হতে পারে। এই সব ম্যাচে আগাম বলা যায় না। তা ছাড়া আমাদের এই টিমটা অনেক ম্যাচিওর্ড। অনেক ম্যাচ খেলেছে এক-এক জন। বড় কিছু ম্যাচ জিতেওছে। আর বিশেষ করে এই টুর্নামেন্টে যেমন খেলছে, তাতে একটা জিনিস প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশ কারও দয়ায় এখানে আসেনি।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print