বুধবার , ১৮ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » কলেজ » পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন গাইড থেকে!

পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন গাইড থেকে!

পাঠ্যবই নয়, গাইড বই থেকে হুবহু প্রশ্ন তুলে দেয়া হচ্ছে পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে। এ রকম অভিযোগ জানিয়ে সোমবার দুপুরে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মুহম্মদ জাফর ইকবাল বাংলামেইলের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন। অনুসন্ধানে তার অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। এমনকি ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের কাছেও এ সংক্রান্ত অভিযোগ এসেছে। সূত্র জানায়, চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সাধারণ গণিত ও পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ের প্রশ্নপত্রের বিষয়ে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের কাছে অভিযোগ এসেছে। এছাড়াও অন্যান্য শিক্ষাবোর্ডগুলোতেও গাইড বই থেকে প্রশ্ন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

160

মুহম্মদ জাফর ইকবাল লিখেছেন, ‘সম্প্রতি পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে গাইড বই থেকে প্রশ্ন তুলে দেয়ার একটি বিষয় ঘটতে শুরু করেছে। এক অর্থে এই বিষয়টি প্রশ্নপত্র ফাঁস থেকেও গুরুতর।’

তিনি আরো লিখেছেন, ‘প্রশ্নপত্র কারা ফাঁস করেছে সেটি ধরা সম্ভব না হতে পারে কিন্তু শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্ট কারা গাইড বই থেকে পরীক্ষার প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে সেটি বের করা সম্ভব।’

এ প্রসঙ্গে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শ্রীকান্ত চন্দ্র চন্দ  বলেন, ‘মুহম্মদ জাফর ইকবালের স্যারের চিঠির বিষয়টি আমি জেনেছি। তবে এর আগেই আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছে। যে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে এসএসসি পরীক্ষা শেষে তাদের বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা পরীক্ষার আগে প্রশ্নপত্র দেখতে পারি না। কারণ, দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক প্রশ্ন করে, তিনি মডারেটরের কাছে পাঠান। তিনি সে প্রশ্ন বিজি প্রেসে পাঠান ও সেখানে ছাপা শেষে পরীক্ষা কেন্দ্রে যায়। ফলে আমরা আগে থেকে এ বিষয়ে জানতে পারি না।’

মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. শাহানা আরা বলেন, ‘প্রথমত গাইড বই নিষিদ্ধ, সেই গাইড বই থেকে কীভাবে প্রশ্ন হয়? এ বিষয়টি আগে অনুসন্ধান করতে হবে। সেই সঙ্গে এখনো সব শিক্ষক সৃজনশীল পদ্ধতি বিষয়টি বুঝতে পারেননি। তার ওপর প্রশ্নপত্র তৈরিতে শিক্ষকদের সময় দেয়া হয় ২ থেকে ৪ দিনের মতো, ফলে অনেকেই ঝামেলা কমাতে গাইড বই থেকে প্রশ্ন করেন। তবে এ বিষয়ে আমাদের শিক্ষক সমাজকে যেমন সচেতন হতে হবে সেই সঙ্গে কর্তৃপক্ষকেও এসব বিষয়ে কঠোর ভূমিকা রাখতে হবে। যোগ্য শিক্ষকদের দ্বারা প্রশ্নপত্র তৈরি করাতে হবে।’

প্রসঙ্গত, গত ২ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও, বিরোধী জোটের অবরোধ-হরতালের কারণে তা শুরু হয়েছে ৬ ফেব্রুয়ারি। এখন পর্যন্ত চলতি এসএসসি পরীক্ষার কোনো বিষয়ই সঠিক সময়ে অনুষ্ঠিত হয়নি।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print