শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » ফুটবল » জম্মু-কাশ্মীরে ‘ঐতিহাসিক’ সরকার

জম্মু-কাশ্মীরে ‘ঐতিহাসিক’ সরকার

সায়ীদ মোহাম্মদসব জল্পনা-কল্পনা ও আশঙ্কার অবসান ঘটিয়ে জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী হলেন মুফতি সায়ীদ মোহাম্মদ। তিনি এই রাজ্যের পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (পিডিপি) নেতা। কেন্দ্রীয় সরকারে থাকা বিজেপির সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে সরকার গঠন করলেন তিনি।

ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় সেখানে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি হয়। ৪৯ দিন রাষ্ট্রপতির শাসনে চলার পর রাজনৈতিক সরকার পেল জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষ।

এই সরকারকে ‘ঐতিহাসিক সরকার’ বলা হচ্ছে। কারণ মুসলিমপন্থি দলের সঙ্গে হিন্দুপন্থি দলের ঐক্যে এই সরকার গঠিত হলো। এ ছাড়া এই রাজ্যে বিজেপি প্রথম কোনো সরকারের অংশীদার হওয়ার সুযোগ পেল, যা বেজিপর জন্য একটি মাইলফলক।

রোববার জম্মু বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনারেল জারওয়ার সিং অডিটোরিয়ামে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন মুফতি সায়ীদ (৭৮)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এখানে তিনি বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের আশা-আকাক্সক্ষা পূরণের ঐতিহাসিক সুযোগ পেয়েছে বিজেপি ও পিডিপি এবং রাজ্যকে উন্নয়নের শিখরে নেওয়ারও সুযোগ এসেছে।

মুফতি সায়ীদের শপথের পর মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে শপথ নেন ২৫ বিধায়ক। এর মধ্যে রয়েছেন বিজেপির নির্মল সিং। তিনি রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন।

শপথ নেওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রী সায়ীদ বলেন, ‘রাজনীতি হলো ‘‘সম্ভাবনার শিল্প’’, যদিও এখানে মতবিরোধ থাকে।’ জম্মু ও কাশ্মীরের ঐক্য সরকারকে ‘নর্থ পোল ও সাউথ পোলের মধ্যে ঐক্য’ হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

শপথ অনুষ্ঠানে আরো যোগ দেন বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ, বিজেপির জ্যেষ্ঠ নেতা এল কে আদভানি এবং মুরলি মনোহর জোসি।

এদিকে দ্বিতীয়বারের মতো জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী হলেন মুফতি সায়ীদ। ২০০২ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত কংগ্রেসের সঙ্গে গঠিত ঐক্য সরকারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

তথ্যসূত্র : এনডিটিভি অনলাইন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print