মঙ্গলবার , ২৪ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » শিক্ষাঙ্গণ » নাশকতায় ক্ষতি ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা: প্রধানমন্ত্রী

নাশকতায় ক্ষতি ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা: প্রধানমন্ত্রী

imagesপ্রধানমন্ত্রী  ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, ৫ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ৫২ দিন যাবৎ বিএনপি-জামায়াত জোট হরতাল-অবরোধের নামে দেশে এক চরম নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। ক্ষমতার লিপ্সায় অন্ধ হয়ে তারা আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে দরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষ, নিরাপদ সাধারণ নারী-পুরুষ এমনকি নিস্পাপ শিশুদেরও। তাদের সহিংসতায় এ পর্যন্ত ১০১ জন মানুষ মৃত্যুমুখে পতিত হয়েছে। এদের অধিকাংশই মারা গেছে আগুনে পুড়ে। তিনি বলেন, পৃথিবীর নিষ্ঠুরতম প্রক্রিয়া হলো আগুনে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করা। সেই প্রক্রিয়ায় ক্ষমতায় আহরণের চেষ্টা কোন রাজনৈতিক দলের মতাদর্শ হতে পারে না।

বুধবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলামের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বর্তমান সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর পূর্ণ করার ইঙ্গিত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট জানে ২০১৪ সালের পাঁচ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত বর্তমান সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর। তা সত্ত্বেও কেন এই নাশকতা? কেউ কেউ এই কার্যক্রমকে রাজনৈতিক হিসেবে অভিহিত করতে চায়। কিন্তু তাদের এই নাশকতার আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে যুদ্ধাপরাধী এবং দুর্নীতির মামলায় সাজা থেকে খালেদা জিয়াকে রক্ষা করা। এই কার্যক্রমে কোন জনসম্পৃক্ততা নেই। শুধু নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতেই এই নাশকতা চালানো হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপি-জামায়াত পরস্পরের দোসর। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ে এ পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যুদন্ড, দুই জনকে আমৃত্যু কারাবাস এবং একজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক রীতিনীতি অনুসরণ করেই এ বিচার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে মাত্র এক জনের রায় এ পর্যন্ত কার্যকর হয়েছে। বাকি রায় আইনী প্রক্রিয়া অনুসরণ করে কার্যকর করা হবে। এ সব রায় বাস্তবায়ন বন্ধ করাই বিএনপি-জামায়াতের নাশকতার অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত হরতাল-অবরোধের নামে পেট্রোল বোমাসহ বিভিন্ন নাশকতায় সহস্রাধিক মানুষ মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। ১ হাজার ১৭৩টি যানবাহন আগুনে পুড়ে গেছে ও ভাংচুর করা হয়েছে। অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে ৬টি লঞ্চে। এছাড়া ২৪ দফায় ট্রেনে নাশকতা করা হয়েছে। হরতালের নামে নাশকতা ও ধ্বংসাত্মক কাজে ব্যবসা-বাণিজ্য, রফতানিসহ বিভিন্ন খাতে দেশের ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এসব কার্যক্রম দেশের প্রচলিত আইনে মৃত্যুদন্ডের উপযোগী অপরাধ।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print