শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » ডিসিসি নির্বাচনী ফাইলে সই করেছেন প্রধানমন্ত্রী

ডিসিসি নির্বাচনী ফাইলে সই করেছেন প্রধানমন্ত্রী

pmঢাকা সিটি করপোরেশনের (ডিসিসি) উত্তর ও দক্ষিণে নির্বাচন সংক্রান্ত ফাইলে সই করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে তিনি এ ফাইলে স্বাক্ষর করেন। মন্ত্রিসভার বৈঠকে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন ও প্রার্থী নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন মন্ত্রী বলেন, ‘মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে ডিসিসি নির্বাচন নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ফাইল নিয়ে গেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন দেন।’

নিয়মানুযায়ী, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এখন নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) ডিসিসি নির্বাচন অনুষ্ঠানের অনুরোধ জানাবে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করবে ইসি।

ডিসিসি নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে যেন একাধিক প্রার্থী না থাকে সে বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করে সমন্বয় করে প্রার্থী দেওয়ার উপর জোর দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ডিসিসি নির্বাচনে মন্ত্রিসভার সব সদস্যকে একযোগে কাজ করতে নির্দেশ দেন তিনি।

এর আগে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে অনির্ধারিত এক আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আনিসুল হককে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । ওইদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শিগগিরই ডিসিসি নির্বাচন হবে। দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সময় মতো প্রার্থী দেওয়া হবে।’

২০১১ সালের ২৯ নভেম্বর জাতীয় সংসদে আইন পাসের মাধ্যমে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দুই ভাগ করা হয়। অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনে সর্বশেষ নির্বাচন হয় ২০০২ সালের এপ্রিলে। এরপর টানা প্রায় ১০ বছর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা। ২০০৭ সালের ১৫ মে তার মেয়াদ শেষ হলে আওয়ামী লীগ সরকার সেখানে প্রশাসক নিয়োগ করে।

এরপর ২০১২ সালের ২৯ এপ্রিল তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এতে ২৪ মে নির্বাচনের দিন ধার্য করা হয়। কিন্তু ভোটার তালিকা ও সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় নির্বাচনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন আদালত। এরপর ২০১৩ সালের ১৩ মে আদালত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন।

একই বছরের অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যে নির্বাচনের ঘোষণা দেয় কমিশন। কিন্তু ঢাকার সুলতানগঞ্জ ইউনিয়ন ঢাকা সিটি করপোরেশনের অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় আবারো দেখা দেয় জটিলতা। এরপর নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়- দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ডিসিসি নির্বাচন দেওয়া হবে।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print