সোমবার , ১৬ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » জাতীয় » কুষ্টিয়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘ঝাপান খেলা’ অনুষ্ঠিত

কুষ্টিয়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘ঝাপান খেলা’ অনুষ্ঠিত

সাপ নিয়ে ঝাপান খেলার প্রতিযোগিতা, চ্যাম্পিয়ন শৈলকুপার আব্দুর রাজ্জাক।

সাপ! যে কেউ দেখলে আঁতকে উঠবে। আর সেই সাপ যদি হয় গোখরা তাহলে কি অবস্থা হবে তা সহজেই অনুমেয়। হ্যা’ গোখরা সাপ, তাও আবার মঞ্চে। গোখরা নিয়ে রিতিমত উৎসবে মেতে ওঠে অর্ধশত সাপুড়ে। গতকাল বুধবার দিনব্যাপী ঝাপান উৎসবে সহস্রাধিক গোখরার কারিশমা দেখলো কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের ফকিরাবাদ গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার মানুষ। স্বাধীনতার আগে গ্রাম বাংলার মানুষের প্রিয় উৎসব ছিল এই ঝাপান। যে সাপ যত বেশি সময় ফনা তুলে নির্দিষ্ট উচ্চতায় দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে সেই সাপ হবে সেরা। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা সাপুড়ে দল তাদের নৈপূর্ণ প্রদর্শন করে উপস্থিত হাজারো দর্শক মাতালেও এই উৎসবে পুরস্কৃত হয়েছে ঝিনাইদহ জেলার ৩ সাপুড়ে। ৩৯ পয়েন্ট পেয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছে জেলার শৈলকুপা উপজেলার আব্দুর রাজ্জাক। ৩২পয়েন্ট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন সোহেল এবং তৃতীয় হয়েছেন ৩০পয়েন্ট পেয়ে লিটন। প্রথম দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পুরস্কার যথাক্রমে ছাগল, ভেড়া ও রাজহাঁস। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী বিজয়িদের মাঝে এসব পুরস্কার তুলে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. আসম আখতারুজ্জামান মাসুম,সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাজী সেলিনুর রহমান, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: গোলাম মওলা। পাটিকাবাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইদুর রহমানের সভাপতিত্বে উৎসবের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সফর আলী।

উৎসবের প্রধান অতিথি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী বলেন আজ থেকে ৩০-৪০ বছর আগে এই ঝাপান উৎসব হত গ্রাম বাংলায়। ধান কাটার মৌসুমে কৃষান কৃষানীরা মাতোয়ারা থাকতো এই উৎসবে। কিন্তু আজ এই উৎসব চোখে পড়েনা। তবে পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নের ফকিরাবাদ গ্রামবাসী যে হারিয়ে যাওয়া ঝাপান উৎসব সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছে এজন্য গ্রামবাসীকে জানায় আমত্মরিক ধন্যবাদ। একই সাথে এই উৎসব আগামীতেও আয়োজনের পরামর্শ দেন। এতে করে গ্রামবাসী বিনোদনের খোরাক পেতে পারেন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print