মঙ্গলবার , ২৪ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » কলেজ » চলমান সহিংসতার প্রতিবাদে জবিতে মানববন্ধন

চলমান সহিংসতার প্রতিবাদে জবিতে মানববন্ধন

IMG_2235চলমান সহিংসতা, জ্বালাও পোড়াও, সাধারণ মানুষকে অগ্নিদগ্ধ করা এবং শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংস করার চক্রান্তের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যাল শিক্ষক সমিতি।

সোমবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের সড়কে এটি অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে নেতৃত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। এবং সভাপতিত্ব করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাঃ আলী নূর।
উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, চলমান সহিংসতায় যারা মৃত্যু বরণ করছে, আগুনে দগ্ধ হচ্ছে তারা মূলত সাধারণ জনগণ। তাদের অধিকাংশ কোন প্রকার রাজনীতির সাঙ্গেও জড়িত নয়। তিনি বলেন, যারা হরতাল-অবরোধ ডেকেছে তাদের নেতা-কর্মীদের মাঠে দেখা যায় না। সন্ত্রাসী ও মাদকাসক্তদের টাকার বিনিময়ে চুক্তি করে গাড়িতে আগুন দিয়ে, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপকরে সাধারণ জনগন হত্যা করছে। বর্তমানে রাজনীতির নামে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আইএস ও আল-কায়েদার ন্যায় সহিংসতা চালাচ্ছে তারা। সুতরাং চলমান সহিংসতার দোষীদের চি‎হ্নিত করতে হবে এবং দ্রুত বিচারের মাধ্যমে এই সহিংসতা বন্ধে সরকারকে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। এই সহিংসতার নির্দেশ দাতাদেরও চিহ্নিত করে তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানের ৩৮নং অনুচ্ছেদে সভা-সমাবেশের অধিকার দেয়া আছে। কিন্তু রাজনীতির নামে এই ধরনের সহিংসতা, অবরোধ আইনত অবৈধ। বর্তমানে রাজনীতির নামে যা হচ্ছে তা হলো বার্ণ ইউনিটে দগ্ধ শিশু, মহিলা ও সাধারণ মানুষের দেহ এবং টেলিভিশনের টকশো। এসকল সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মাধ্যমে জনজীবন থেকে শুরু করে শিক্ষাব্যবস্থা, ব্যবস্যা-বাণিজ্য সকল ক্ষেত্রে যারা দেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে, তাদের সহিংস কার্যকলাপ থেকে আমাদের সকলকে সজাগ থাকতে হবে। রাজনীতি করতে হবে সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য, তাদের ধ্বংসের জন্য নয়। মানববন্ধনে অন্যান্য বক্তারা এধরনের সহিংসতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এবং এসকল সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে আরো কঠোর থেকে কঠোরতর হওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানন।

এসময় নীলদলের সভাপতি অধ্যাপক মোঃ আশরাফ-উল-আলম, সাধারণ সম্পাদক ড. নূর মোহাম্মদ, শিক্ষক সমিতির সদস্য অধ্যাপক ড. কাজী সাইফুদ্দীন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন শিক্ষক, কর্মকর্তা সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ জাহিদ আলম, কর্মচারী সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাল্লাউদ্দিন মোল্লা, কর্মচারী (সহায়ক) সমিতির সভাপতি মনিরুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন। এছাড়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, আমরা মুক্তিযুদ্ধের সন্তান (জবি), আওয়ামী আইনজীবি পরিষদ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি, ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজসহ পুরান ঢাকার স্কুল-কলেজ, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠন ও স্থানীয় এলাকবাসী মানববন্ধন কর্মসূচীর সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print