শুক্রবার , ২০ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » সরকারি » ক্ষমতাশালীর প্রতিহিংসার শিকার এক মেধাবী শিক্ষার্থী ও তার পরিবার (ভিডিও)

ক্ষমতাশালীর প্রতিহিংসার শিকার এক মেধাবী শিক্ষার্থী ও তার পরিবার (ভিডিও)

‘‘আইন সবার জন্য সমান” চিরসত্য এই কথাটি আজ বাস্তবতার কাছে পরাভূত। একই অপরাধে ক্ষমতাশালীর মেলে বিনাশর্তে  মুক্তি। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের জোটে হয়রানি, আইনের মারপ্যাচ আর কঠোর দণ্ড, জামিন তো দূরের বিষয়। সম্প্রতি এমনই এক ঘটনার শিকার  নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের  মেধাবী শিক্ষার্থী জান্নাতি হোসেন।

গত ১১ জুলাই রাতে মহাখালী ফ্লাইওভারে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুলিশের টহল ভ্যানে ধাক্কা দিলে আহত হন নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী জান্নাতি হোসেন। সেই দুর্ঘটনায় মারা যায় গাড়িতে থাকা জান্নাতির বন্ধু মোস্তামসির আশরাফ শুভ্র।  আহত হয় পুলিশের চার সদস্য। 

এ ঘটনায় পুলিশের এসআই নিজামুল হক বাদী হয়ে একটি মামলা করে।  পুলিশের দেয়া মামলাটি জামিনযোগ্য ছিল বলে ২১ জুলাই তারিখ শুভ্রর   ঢাকার সিএমএম আদালতে শুভ্র’র চাচা আব্দুল হান্নান খান জান্নাতির নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন। দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় তিনি এ মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলায় আসামী করা হয় জান্নাতির বাবা ডিএম দেলোয়ার হোসেন, জান্নাতির ১২ ও ১৮ বছরের ছোট দুই ভাই এবং তার হবু স্বামী রেয়মান কে।

 মামলার সাক্ষী করা হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক কামরুল হোসেন মোল্লা, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মদ আফজাল, আইন বিচার সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মিজানুর রহমান, নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা জজ মাহবুবুর রহমান, দুদকের পিপি অ্যাডভোকেট এমদাদুল হক দুলুসহ ১৫ জনকে। জান্নাতির পরিবারের দাবি, সাক্ষীরা কেউই ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট নয় এবং তারা প্রভাব খাটিয়ে মামলার গতি ভিন্ন দেক প্রবাহিত করছে।  

এ মামলায় জান্নাতিকে আটক দেখিয়ে দার কাছ থেকে দু’দফা জবানবন্দি নেয়া হয়।  পরবর্তী কার্যদিবসে জান্নাতির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করে আদালত।

অবশ্য জান্নাতির পরিবার অভিযোগ করে নিহত শুভ্র’র প্রভাবশালী পরিবার এই মামলায় জান্নাতিকে ফাাঁসতে চেষ্টা করছে, পাশাপাশি তাদের পরিবারকেও হয়রানির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে।

অন্যদিকে মামলার সাক্ষীরা মামলার বিষয়ে নানা স্ববিরোধী ও নানা রকম মনগড়া তথ্য দিয়েছেন এমনটি দেখা গেছে  এটিএন নিউজের প্রতিবেদনেও। 

 

আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে, কিন্তু তার গতি রোধ করে তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত করে কারও প্রতিহিংসার অস্ত্র হিসেবে যেন না ব্যবহার হয়। আর কোন পরিবার ও তার সদস্যদের এমন হয়রানির শিকার না হতে হয়। এমনটাই চান জান্নাতির মা শাকিলা হোসেন।

ভিডিও লিংক

 

 

 


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print