সোমবার , ১৬ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » পুলিশকে কঠোর হতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

পুলিশকে কঠোর হতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

Captureপ্রধানমন্ত্রীর পর এবার রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদও পেট্রোলবোমা ও আগুন দিয়ে নিরীহ মানুষ হত্যায় জড়িতদের গণতন্ত্র, মানবতা ও সভ্যতার শত্রু উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, ‘যানবাহনে পেট্রোলবোমা ছুঁড়ে ও আগুন দিয়ে নিরীহ মানুষদের হত্যা করায় দেশবাসীর সঙ্গে তিনিও গভীরভাবে মর্মাহত। যারা এ ধরনের জঘন্য কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তারা গণতন্ত্র, মানবতা ও সভ্যতার শত্রু। এসব দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।’

বুধবার বঙ্গভবনে পুলিশ সপ্তাহ-২০১৫ পালনের অংশ হিসেবে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন। রাষ্ট্রপতি সাম্প্রতিক সময়ে পেট্রোলবোমা ও অন্যান্য সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং তাদের শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

রাষ্ট্রপতি এসব মানুষ হত্যাকারী সন্ত্রাসীদের আটক করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরকে সহায়তা করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘পুলিশ বাহিনীর সদস্যদেরকে তাদের সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব ও নিরপেক্ষতা বজায় রাখার মাধ্যমে ব্যক্তিগত স্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে দেশ ও জনগণের স্বার্থ রক্ষায় দায়িত্ব পালন করতে হবে। আপনাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন নিয়ে যাতে কেউ প্রশ্ন তুলতে না পারে, সেদিকে আপনাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে।’

আবদুল হামিদ বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ ইতোমধ্যেই জনবান্ধব হিসেবে জনগণের আস্থা অর্জন করেছে এবং ভবিষ্যতেও তারা তাদের এ ধরনের দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখবে বলে আশা করি।’

রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক ও প্রযুক্তিভিত্তিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে বর্তমান সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের উল্লেখ করে বলেন, ‘সরকার ২০০৯ থেকে ২০১৪ সালে ৭৩৯টি ক্যাডারসহ ৩২ হাজার নতুন পদ সৃষ্টি করেছে। পাশাপাশি শিল্প পুলিশ, বিশেষ নিরাপত্তা ও প্রটেকশন ব্যাটালিয়ন, তদন্ত ব্যুরো, পর্যটন পুলিশ ও নৌ পুলিশের মতো কয়েকটি বিশেষ ইউনিট গঠন করেছে।’

রাষ্ট্রপতি ২০১৩-২০১৪ সালে দায়িত্ব পালনকালে নিহত পুলিশ সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং পুলিশের আইজি শহীদুল হক উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র: বাসস


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print