সোমবার , ১৬ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » বিশ্ববিদ্যালয় » ‘ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন খাদ্য আইন কার্যকর’

‘ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন খাদ্য আইন কার্যকর’

kamrulআগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ‘নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩’ কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে তথ্য অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘নতুন আইন কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আগের ‘পিউর ফুড অর্ডিন্যান্স-১৯৫৯’ রহিত হবে। আগের অধ্যাদেশে কোনো ব্যক্তি অনিরাপদ খাদ্য উৎপাদক, প্রক্রিয়াকারী বা বিক্রেতার বিরুদ্ধে সরাসরি মামলা করতে পারত না। কিন্তু বর্তমান আইনে কারণ উদ্ভব হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে যে কোনো ব্যক্তি নিরাপদ খাদ্যবিরোধী যেকোনো কার্য সম্পর্কে বিশুদ্ধ খাদ্য আদালতে সরাসরি মামলা করতে পারবেন।’

কামরুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমান আইনে ২৩টি বিভিন্ন অপরাধে এক থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা চার লাখ থেকে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।’

তিনি জানান, ‘খাদ্যদ্রব্যে বিষাক্ত উপাদান ক্যালসিয়াম, কার্বাইড, ফরমালিন, তেজস্ক্রিয় ও ভারী ধাতুর ব্যবহার, ভেজাল খাদ্য আমদানি, বিপণন, অনুমোদনবিহীন খাদ্য সংযোজন দ্রব্যের ব্যবহার, মেয়াদোত্তীর্ণ খাদ্য আমদানি, মজুদ, সরবরাহ, কীটনাশক, অনুমোদনবিহীন বংশগতি পরিবর্তনকৃত খাদ্য, অভিনব খাদ্য ইত্যাদির উৎপাদন ও প্রক্রিয়াকরণ এবং বিপণন শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে।’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক নীতিমালা-পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সংশ্লিষ্টদের পরামর্শ প্রদানের জন্য খাদ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে ৩০ সদস্য বিশিষ্ট জাতীয় নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা পরিষদ থাকবে। এছাড়া নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে ২৮ সদস্য বিশিষ্ট শক্তিশালী কেন্দ্রীয় নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটি গঠন করা হবে। নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনার সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত সকল কর্তৃপক্ষ ও সংস্থার মধ্যে সমন্বয় সাধন করাই হবে এই কমিটির কাজ।’

নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩ এর অধীনে নিরাপদ খাদ্য বিধিমালা-২০১৪ প্রণীত হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

#


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print