শুক্রবার , ২০ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » অন্যান্য » খালেদাকে আদালতের সহানুভূতি

খালেদাকে আদালতের সহানুভূতি

Khaleda-kokoপুত্রশোকে কাতর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি সমবেদনা জানালেন আদালত।

বৃহস্পতিবার জিয়া চ্যারিটেবল ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ধার্য তারিখে খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াসহ অন্য আইনজীবীরা আদালতকে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যু সংবাদ অবহিত করলে বিচারক আবু আহমেদ জমাদার তার নিজের ও আদালতের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করেন।

পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-৩-এর অস্থায়ী এজলাসে মামলা দু’টির সাক্ষ্যগ্রহণ চলছে।

এদিন আইনজীবীরা খালেদা জিয়ার ছেলের মৃত্যু সংবাদ, এর আগে তার গাড়ির বহরে হামলার কারণে নিরাপত্তাহীনতা এবং আগের তারিখে আদালতের প্রতি তার অনাস্থার বিষয় উল্লেখ করে আদালতে মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ স্থগিত রাখার আবেদন করেন।

সার্বিক বিবেচনায় আদালত আসামিপক্ষের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত  মামলার সব কার্যক্রম মুলতবি করেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘আদালত খালেদা জিয়ার ছেলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে সহানুভূতি জানিয়েছেন। তাই আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত  মামলার সব কার্যক্রম মুলতবি করেন আদালত।’

এদিকে দুদকের পক্ষে অ্যাডভোকেট মোশারফ হোসেন কাজল বলেন, ‘ছেলের মৃত্যুতে শোকাহত খালেদার পক্ষে তার আইনজীবীরা সময় চেয়ে আবেদন করে। আর সেই আবেদনের পক্ষে আমরাও। তাই কোনো যুক্তি উপস্থাপন করা হয়নি। বিএনপি চেয়ারপারসনের ছেলের মৃত্যুতে আমরাও শোকবার্তা জানাই।’

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় গত ১৯ মার্চ ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ অভিযোগ গঠন করেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলায় দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

২০০৯ সালের ৫ আগস্ট খালেদা জিয়া, তার ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় দুদক।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১১ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় মামলা করে দুদক।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদার এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে অ্যাডভোকেট মোশারফ হোসেন কাজল আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

#


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print