শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » বিশ্ববিদ্যালয় » পুলিশে আরো ৫০ হাজার লোক নিয়োগ দেয়া হবে

পুলিশে আরো ৫০ হাজার লোক নিয়োগ দেয়া হবে

 আসাদুজ্জামান খান কামালস্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, সরকার পুলিশ বাহিনীর শক্তি বাড়াতে ৫০ হাজার নতুন জনবল নিয়োগের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
‘জনবল বৃদ্ধি করতে ইতোমধ্যেই নতুন ৫০ হাজার পদ সৃষ্টির ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’ উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী মহা-পুলিশ পরিদর্শককে (আইজিপি) নতুন জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক উদ্যোগ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।
তিনি বলেন, সরকার বিগত ৫ বছরে পুলিশ বাহিনীতে ৩২ হাজার জনবল নিয়োগ করেছে।
প্রতিমন্ত্রী আজ দুপুরে পুলিশ সপ্তাহ-২০১৫ উপলক্ষে রাজধানীর রাজারবাগে সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব মোজাম্মেল হক খান, মহা-পুলিশ পরিদর্শক (আইজিপি) শহিদুল হক, র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমদ, অতিরিক্ত আইজিপি (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) মো. জাবেদ পাটোয়ারী ও ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া।
সমাবেশে সারাদেশ থেকে আগত পুলিশের সিনিয়র কর্মকতাগণ তাদের সমস্যা তুলে ধরেন।
স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশ ও জাতির নিরপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ ও র‌্যাবকে সরকার যুগোপযোগী ও প্রযুক্তিগত দিক থেকে আধুনিক হিসেবে করে গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
তিনি বলেন, ২০১৩ সালে হরতাল, অবরোধে সহিংসতা চলাকালে পুলিশ ও র‌্যাব বাহিনীর সদস্যরা নিজেদের জীবন বাজি রেখে দায়িত্ব পালন করেছে। বিগত বছরে সন্ত্রাসীদের হাতে ১৭জন ও গত একমাসে বিএনপি-জামায়াতের হরতাল, অবরোধ চলাকালে সহিংসতায় এ পর্যন্ত ১৩জন সদস্য নিহত হয়েছেন।
তিনি বলেন, অপরাধ দমণে আমরা চাই একটি সুশৃঙ্খল, দক্ষ ও পেশাদার পুলিশ বাহিনী গড়ে তুলতে। সে জন্য যা যা করার দরকার সরকার তা করবে। তাই সরকার মনে করে পুলিশের পেছনে সকল খরচ আর্থিক ব্যয় নয়, এটা দেশ ও জাতির নিরাপত্তার জন্য বিনিয়োগ।
তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধী বিচার প্রক্রিয়ার সময়, সংসদ নির্বাচন, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমণে পুলিশ এবং র‌্যাবের সদস্যরা সাহসী ভূমিকা পালন করেছেন। পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা দেশের পাশাপাশি বিদেশের মাটিতে সমান্তরালভাবে প্রশংসনীয় কাজ করছেন।
জাতিসংঘে পুলিশ বাহিনীর অংশীদার হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে প্রশংসার সাথে কাজ করছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘ বাংলাদেশ থেকে আরো পুলিশ সদস্য নিতে আগ্রহী বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।
তিনি বলেন, দেশের সাইবার অপরাধ দমণে সরকার সাইবার ক্রাইম ও সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে কাউন্টার টেরিরিজম পুলিশ ইউনিট গঠনের ব্যপারে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, র‌্যাবের সক্ষমতা আরো বাড়ানো হবে। র‌্যাবের কারিগরি ও প্রযুক্তিগত ক্ষমতা বাড়াতে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি আশা প্রকাশ করেন পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা পেশাদারিত্ব ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে কাজ করবেন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print