বৃহস্পতিবার , ২৬ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » স্বাস্থ্য » জেনে নিন মুলার পুষ্টিগুণ

জেনে নিন মুলার পুষ্টিগুণ

mola1মুলা ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও মিনারেল সমৃদ্ধ শীতকালীন সবজি, যা দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। মুলা সাধারণত সাদা, লাল ও হালকা গোলাপি রংয়ের হয়ে থাকে। মুলায় খাদ্যশক্তি কম, তন্তু বা ফাইবার বেশি এবং আয়রন, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম ইত্যাদি থাকার কারণে চল্লিশোর্ধ্ব স্বাস্থ্যসচেতনদের জন্য এটি একটি আদর্শ খাবার হতে পারে। যারা ডায়েটিং করছেন তাদের জন্য মুলা একটি দরকারি খাবার

মুলায় যত পুষ্টি
১০০ গ্রাম মুলা থেকে ১৬ কিলোক্যালরি খাদ্যশক্তি, ১.৬ গ্রাম খাদ্যআঁশ, ২৫ মাইক্রোগ্রাম ফলেট, ১৪.৮ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, ২৩৩ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ২৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ০.২৮ মিলিগ্রাম জিংক এবং ১০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায়। এ ছাড়া আছে অন্যান্য ভিটামিন, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও মিনারেল।

চোখ, মুখ, মাড়ি ও রক্তের জন্য মুলা
মুলার অ্যান্টি অক্সিডেন্ট লিউটিন চোখের দৃষ্টিশক্তি ঠিক রাখে। ভিটামিন বি৬, রিবোফ্ল্যাভিন মুখের ঘা প্রতিরোধ করে। কাঁচা মুলা থেকে অ্যাসকরবিক অ্যাসিড গ্রহণ করা সম্ভব যা মাড়ির সুস্থতা রক্ষা করবে। আর ফলিক অ্যাসিড দেহের রক্ত বাড়ায়। ত্বকের সজীবতা রক্ষায় বিটাক্যারোটিন বিশেষভাবে সহায়তা করে।

ক্যানসার প্রতিরোধে মুলা
মুলার অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সালফোরাফেন ক্যানসার কোষের ক্ষতিকর প্রভাব কমিয়ে প্রোস্টেট, স্তন বা ব্রেস্ট, কোলন বা বৃহদান্ত্র ও ডিম্বাশয় বা ওভারি ক্যানসার প্রতিরোধে কাজ করে।

ওজন কমাতে মুলা
মুলায় রয়েছে প্রচুর ডায়েটারি ফাইবার বা তন্তু, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে, খাদ্যনালিতে চর্বি শোষণে বাধা দেয়। কম ক্যালরিযুক্ত সবজি হওয়ায় দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করে। এক কাপ কাটা মুলায় রয়েছে মাত্র ১৯ কিলোক্যালোরি খাদ্যশক্তি।

হূদরোগ প্রতিরোধে মুলা
মুলার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফ্ল্যাভনয়েডস হূিপণ্ডের রক্তনালি তথা হূদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। এ ছাড়া খাদ্য থেকে প্রাপ্ত কোলেস্টেরল শোষণে বাধা দেওয়ার মাধ্যমে রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে মুলা।

ডা. সজল আশফাক

 


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print