বুধবার , ২৫ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » ৫ দিনে ক্রসফায়ারে ৩ বিরোধী নেতা নিহত

৫ দিনে ক্রসফায়ারে ৩ বিরোধী নেতা নিহত

বন্দুক যুদ্ধেবিরোধী জোটের অবরোধের মধ্যে হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে বন্দুকযুদ্ধে নিহতের ঘটনা। গত পাঁচ দিনে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন বিরোধী জোটের তিন নেতা। তাদের মধ্যে দুজন ছাত্রদল আর একজন জামায়াত নেতা। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন দুজন। আর র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন এক ছাত্রদল নেতা। ডিবির সাথে বন্দুক যুদ্ধের সর্বশেষ শিকার খিলগাঁও থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান জনি। গত রাতে খিলগাঁও জোড়াপুকুর মাঠে ডিবি পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন তিনি। নিহত জনির বাবা ইয়াকুব আলী জানান, ছোট ভাই মনিরুজ্জামানকে দেখতে সোমবার ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে যায় জনি। সেখান থেকে সাদা পোশাকধারী পুলিশ সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে যায়।
এর আগে সোমবার দিবাগত রাতে নড়াইলের পৌর কাউন্সিলর ইমরুল কায়েস ঢাকায় ডিবির সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। বৃহস্পতিবার থেকে নিখোঁজ ছিলেন তিনি। সোমবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে মতিঝিলের এজিবি কলোনির কাঁচাবাজার এলাকায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়ে অজ্ঞাত হিসেবে সেখানে ছিল তার লাশ। একটি নয়, দুইটি নয়, ১০টি বুলেটে বিদ্ধ হয় তার বুক। পরে পুলিশের কাছ থেকে খবর পেয়ে তার পরিবারের সদস্যরা ঢাকায় আসেন। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তারা তার লাশ শনাক্ত করেন। পরিবারের অভিযোগ, গ্রেপ্তারের পর ঠাণ্ডামাথায় তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।
শুক্রবার রাতে যৌথবাহিনীর অভিযানের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাটে র‌্যাবের সথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন আরেক ছাত্রদল নেতা। নিহত মতিউর রহমান শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহসভাপতি ছিলেন। বিএনপির দাবি, গ্রেপ্তারের পর পরিকল্পিতভাবে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিএনপি সভাপতি অধ্যাপক মো. শাহজাহান মিঞা বলেন, মতিউর রহমানকে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আটক করে। এরপর পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করে। তার বিরুদ্ধে থানায় কোনো মামলা বা একটি জিডিও ছিল না।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print