মঙ্গলবার , ১৭ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » টেনিস » শেখ হাসিনার পা ধরে মাপ চাইলে আলোচনা

শেখ হাসিনার পা ধরে মাপ চাইলে আলোচনা

শেখ ফজলুল করিম সেলিমআওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পা ধরে মাপ না চাইলে খালেদা জিয়ার সঙ্গে কোন আলোচনা হবে না।
মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ফার্মগেটে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর অফিস ও বাসভবনে বোমা হামলার প্রতিবাদে সভার আয়োজন করে সংগঠনটি।
শেখ সেলিম বলেন, ‘খালেদা জিয়া অবরোধের নাটক করছেন। আর বলছেন আলোচনা করতে হবে। কিসের আলোচনা। কোথায় আলোচনা? শেখ হাসিনার পা ধরে মাপ চান আর বলেন- আমি ওই সময় ভুল করেছিলাম। এখন একটু আমার সাথে আলোচনা করুন। তবে করা যেতে পারে। এর আগে নয়।’
তিনি বলেন, ২০১৪ সালে জামায়াত নির্বাচন করেনি তাই আপনিও (খালেদা) নির্বাচনে যাননি। ‘আর এখন গতকাল এক সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন দাবি মানতে হবে। আহারে যেন মামু বাড়ির আবদার।’
তিনি বলেন, ‘৫ জানুয়রির নির্বাচন না করে ভুল করেছেন খালেদা জিয়া। আগামীতেও যদি এই ভুল করেন তবে আপনার দলের অস্তিত্ব থাকবে না। মুসলিম লীগের পরিণতি হবে। অবশ্যই বিএনপি মুসলিম লীগের নতুন সংস্করণ। কারণ তারা এখনও বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারেনি।’
আওয়ামী লীগের এই সিনিয়র নেতা খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনার ছেলে বিদেশে বসে বলে জালিয়ে দাও, পুড়িয়ে দাও। দেশকে বিচ্ছিন্ন করে দাও। স্পষ্ট বলতে চাই জনগণের জানমাল নিয়ে ছিনিমিনি খেলবেন না।
তিনি বলেন, নেতা দেখো বিএনপির সব। খালেদা অবরুদ্ধ সেখানে কোন নেতার খবর নেই। কাল জিয়ার জন্ম না মৃত্যু দিন ছিল। সেখানেও কোন নেতা যায়নি। কি বিপ্লবী নেতা দেখ। ‘ওরে আমার বিপ্লবী নেতা রে!’
তিনি বলেন, ‘ওদের কোন সাহস নেই। ওই বাসার সামনে দুইটা বোমা মারে। আরে সাহস থাকলে সামনে আসুন। সময় দেন। খালেদা জিয়া আপনিও সময় দেন। স্থান ও সময় নির্দিষ্ট করেন। আপনিও নামবেন আমরাও নামবো। দেখা যাবে কার সঙ্গে জনগণ আছে।’
খালেদা জিয়া মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে উল্লেখ করে সেলিম বলেন, ‘৪ তারিখ আপনি হঠাৎ করে গাট্টি-বস্তা নিয়ে অফিসে উঠেছেন। বলছেন আপনাকে আবরুদ্ধ করেছে। এই জন্য সারা দেশে অবরোধ ডেকেছেন। মানুষ পুড়িয়ে মারছেন। এটা কোন গণতান্ত্রিক আন্দলোন না। আপনি যে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন এর জন্য আপনার বিচার হওয়া উচিৎ।’
এ সময় তিনি খালেদা জিয়ার এই মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য তাকে গ্রেপ্তার করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিচার করার জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
দেশীয় বুদ্ধিজীবী ও বিদেশি কূটনীতিকদের সমালোচনা করে বলেন, ‘কিছু পণ্ডিত ব্যক্তি আছে যারা বলে-একটু আলোচনা করলেই তো হয়। বিদেশিরা ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও অন্যান্য দেশ বলেন আলোচনার কথা। আমি স্পষ্ট বলতে চাই, বাংলাদেশের কোন বিদেশি প্রভূ নেই। এখানের রাজনীতি কি হবে এদেশের মানুষ নির্ধারণ করবে। ওই সব তত্ত্ব ফত্ত্ব বাদ দেন।’
খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে সেলিম বলেন, আপনি এক বছর আগে নির্বাচন প্রতিহত করতে চেয়েছিলেন। প্রায় দুই হাজার মানুষ মেরেছেন। পুলিশ, আনসার সদস্য এমনকি সেনাবাহিনীও হত্যা করেছেন। প্রিসাইডিং অফিসার হত্যা করেও নির্বাচন ঠেকাতে পারেননি। আপনি তো চেয়েছিলেন হত্যাকাণ্ডের পর সেনাবাহিনী আসবে। তারা আপনাকে ক্ষমতায় বসিয়ে দিয়ে যাবে।
তিনি কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, শায়েখ আব্দুর রহমান, উলফা-তুলফা এই সরকারের কিছু করা যাবে না। বাংলাদেশে একজন ছিল সিরাজ সিকদার। ‘এখন কোথায় সেই সিরাজ সিকদারের দরাজ? একটা টিকটিকিও নাই।’
বিএনপির লোকেরাই খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা রিয়াজ রহমানকে গুলি করেছে দাবি করে তিনি বলেন, আন্দোলনকে বেগবান করার জন্য আপনার লোকেরাই রিয়াজ রহমানকে গুলি করেছে। সব ধরা পড়েছে। সময়মত সবই জানতে পারবেন।
ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীলীগের সভাপতি মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিলের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশিদ, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print