রবিবার , ২২ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » টেনিস » ঝিনাইদহে আ’লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

ঝিনাইদহে আ’লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

আনন্দ কুমার ঘোষঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় আজ বুধবার আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে নয়জন। এর জের ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা পণ্ড হয়ে গেছে। বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা একটি মাইক্রোবাস, ১১টি মোটরসাইকেল ও কয়েক শ চেয়ার-টেবিল ভাঙচুর করেন।

নিহত ব্যক্তির নাম আনন্দ কুমার ঘোষ। তিনি কোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ বিকেল সাড়ে চারটার দিকে স্থানীয় পৌরসভা অডিটোরিয়ামে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা চলছিল। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সাংসদ আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে সভায় জেলার বেশ কয়েকজন নেতা অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। একপর্যায়ে নিজ দলের একদল দুর্বৃত্ত লাঠিসোঁটা, রাম দা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বর্ধিত সভায় হামলা চালায়। তারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসরাইল হোসেন, কোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনন্দ কুমার ঘোষ, পৌরসভার কাউন্সিলর রেজাউল ইসলাম ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী হাসানুজ্জামান ওরফে জামানকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। হামলায় আরও ছয়জন আহত হন। পরে গুরুতর আহত আনন্দ কুমারকে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ছাড়া ইসরাইল, রেজাউল ও হাসানুজ্জামানকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে হাসপাতালে আনন্দ কুমার মারা যান।

সংঘর্ষ চলাকালে প্রতিপক্ষের হামলায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আজিজের মাইক্রোবাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ছবি: প্রথম আলোজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান অভিযোগ করেন, তাঁদের উপস্থিতিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনারের সমর্থকেরা এ হামলা চালিয়েছেন। এ ঘটনার পর তাঁরা সভা বন্ধ করে দেন।
আবদু​ল মান্নান একজনের মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গত ২৬ নভেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের একটি বর্ধিত সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করা হয়। তিনি সেই কমিটির আহ্বায়ক, সাংসদ আনোয়ারুল আজিম যুগ্ম আহ্বায়ক। কিন্তু আনোয়ারুল আজিম সভায় আসার পরই এ হামলার ঘটনা ঘটে।
এ ব্যাপারে কথা বলতে সাংসদ আনোয়ারুল আজিমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। তবে আনোয়ারুল আজিমের অনুসারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী জানান, তাঁরা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হওয়া সত্বেও তাঁদের না জানিয়ে এ বর্ধিত সভা ডাকা হয়েছিল। আবদুল মান্নান তাঁদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি করতে চক্রান্ত করে এই সভা করছিলেন, যেটা জানতে পেরে দলের কিছু কর্মী বিষয়টি শুনতে যান। তখনই হট্টগোল হয়। এ সময় কয়েকজন সামান্য আহত হন।
কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, তিনিও একজনের মৃত্যুর খবর শুনেছেন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print