শুক্রবার , ২৭ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » বাংলাদেশের সাথে মুক্তবাণিজ্যে আগ্রহী চীন

বাংলাদেশের সাথে মুক্তবাণিজ্যে আগ্রহী চীন

bd_china_flagবাংলাদেশের সাথে মুক্তবাণিজ্য করার প্রস্তাব দিয়েছে বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক শক্তি চীন। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর ঢাকা সফরের সময় দেয়া হয় এই প্রস্তাব।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, আঞ্চলিক কৌশলগত কারণে বাংলাদেশের সঙ্গি হতে চায় চীন। আর বিশ্লেষকরা বলছেন, অভ্যন্তরীণ বাজারের বিষয় মাথায় রেখে বিবেচনা করতে হবে চুক্তির প্রস্তাব। তবে সমন্বিত অর্থনৈতিক অংশিদারিত্ব হলে, উপকৃত হবে উভয় দেশ, এমনও মত তাদের। আর এতে যেমন বিনিয়োগ আসবে বাংলাদেশে, তেমনি বাণিজ্য ঘাটতিও কমবে চীনে সাথে।

গত ডিসেম্বরে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং আই-এর সফরে দেশটির পক্ষ থেকে বাংলাদেশের সাথে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে চীন থেকে আমদানি করা হয়েছে ৭৫৪ কোটি ডলারের পণ্য। বিপরীতে চীনে রফতানি করা হয়েছে মাত্র ৭৪ কোটি ৬১ লাখ ডলারের পণ্য। বিপরীতে যেখানে ঘাটতির পরিমান ৬৮০ কোটি ডলার। অন্যদিকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে চীনের সরাসরি বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ১২ কোটি ডলারের কিছু কম। ফলে এই বিশাল ঘাটতি কমাতে চীনের মুক্ত বাণিজ্যের প্রস্তাবকে কিভাবে দেখছনে বিশ্লেষকরা।

ভূ-রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অবস্থানের কারণে এই মুর্হুতে এশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ দেশ হতে চলেছে বাংলাদেশ। সেই যাত্রায় সঙ্গী হতে চায় চীন।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সংযোগ সেতু হতে পারে বাংলাদেশ। তাই মুক্তবাণিজ্য চুক্তির আগে অভ্যন্তরীণ বাজার রক্ষার পাশাপাশি চীন থেকে নতুন বিনিয়োগ আর্কষণের পরামর্শ এই বিশ্লেষকের।
আগামী বছর চীনের জন্য বরাদ্দকৃত বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বড় ধরনের বিনিয়োগ প্রস্তাবের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে দেশটি।
বিষয়টিকে মাথায় রেখে দেশটির সাথে বাণিজ্যিক ও দ্বিপক্ষীয় সর্ম্পকের রূপরেখা তৈরী করবে বাংলাদেশ, জানান প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print