রবিবার , ২২ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » অন্যান্য » মীর কাসেম অালীর ফাঁসির আদেশ

মীর কাসেম অালীর ফাঁসির আদেশ

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এ রায় ঘোষণা করেন। ট্রাইব্যুনালের অপর দুই সদস্য হলেন- বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম।
রায়ে কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিনসহ ৫জনকে হত্যা ও গুমের ২টি অভিযোগে মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দেয়া হয়। এছাড়া বাকি ৮টি অভিযোগে বিভিন্ন মেয়াদে পর্যায়ক্রমে ৭২ বছরের কারাদণ্ড ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল। এছাড়া বাকি ৪টি অভিযোগ থেকে খালাস পান তিনি।
এর আগে বেলা ১১টায় বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ রায় পড়া শুরু করেন। ৩৫১ পৃষ্ঠার এ রায় সংক্ষিপ্ত আকারে পড়ে শোনান পর্যায়ক্রমে ট্রাইব্যুনালের বিচারকরা।
সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে কাসেম আলীকে টাইব্যুনালে আনা হয়। রায়কে ঘিরে ট্রাইব্যুনাল ও এর আশে পাশের এলাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়। ট্রাইব্যুনালের ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে একাধিক সংগঠন মীর কাসেম আলীর ফাঁসির দাবিতে শ্লোগান দেয়।
গত বৃহস্পতিবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ রায় ঘোষণার এ দিন ধার্য করেছিলেন ।
মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত দুটি ট্রাইব্যুনালের ১১তম রায় এটি। এর আগে ১০টি রায়ে ১১ আসামি দণ্ডিত হয়েছেন। সর্বশেষ ২৯ নভেম্বর জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল-১।
গত বছরের ৫ সেপ্টেম্বর মীর কাসেমের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধকালে হত্যা, নির্যাতন, অপহরণসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৪টি অভিযোগে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচার শুরু করেন ট্রাইব্যুনাল-১। চলতি বছর মামলাটি ট্রাইব্যুনাল-২ এ স্থানান্তর করা হয়। গত ৪ মে মামলাটির বিচারকার্য শেষে রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখা হয়।
রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছে প্রসিকিশন পক্ষ। প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, রায়ে দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে। বিচারহীনতার যে সংস্কৃতি তা থেকে দেশ কলঙ্কমুক্ত হয়েছে।
অপরদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী নিজামুল ইসলাম তার প্রতিক্রিয়ায় রায়ে সংক্ষুব্ধ হয়েছেন বলে জানান। তিনি বলেন, এ রায়ে ন্যায় প্রতিষ্ঠা হয়নি। সত্য প্রতিষ্ঠা হয়নি। আমরা আপিল করবো।
রায়ের পর মীর কাসেম আলীর প্রতিক্রিয়া কী এমন প্রশ্নের জবাবে তার বরাত দিয়ে তিনি জানান, মীর কাসেম বলেছেন, এটি মিথ্যা মামলায় সাজানো রায়। তিনি রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print