শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » বিনোদন » রুবেলের সাথে স্বামী-স্ত্রীর মতোই থাকতাম

রুবেলের সাথে স্বামী-স্ত্রীর মতোই থাকতাম

রুবেলের সাথে স্বামী-স্ত্রীর মতোই থাকতামউঠতি নায়িকা নাজনিন আক্তার হ্যাপি। লোকে তাকে তেমন চিনতই না। কিন্তু হঠাৎই টক অব দ্য কান্ট্রিতে পরিণত হন এই চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। জাতীয় দলের পেসার রুবেলের সঙ্গে সম্পর্ক এবং এর জের ধরে থানায় ধর্ষণ মামলার পর থেকেই এক নামে পরিচিতি পেয়ে যান হ্যাপি।

এখন হ্যাপি-রুবেল কোনো কিছু মানেই মানুষের কাছে হট কেক। রোববার রাতে রেডিও ঢাকা এফএমে এসে অন্ধকারের গল্পে নিজের এবং রুবেলের কাহিনী নিজ মুখে শোনালেন হ্যাপি। জানালেন কীভাবে সম্পর্ক হয়েছে, গভীরতা কতদূর গিয়েছিল। একই ফ্ল্যাটে তারা কীভাবে থাকতেন। এরপর কীভাবে আবার দু’জনের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হতে থাকে।

যদিও মামলার পর হ্যাপি শর্ত দিয়েছিলেন, রুবেল তাকে বিয়ে করলে তিনি মামলা তুলে নেবেন। কিন্তু ঢাকা এফএমে তিনি বলেছেন, ‘রুবেলকে আর বিয়ে করতে চান না। বরং প্রতারণার কারণে যেন তার কঠোর শাস্তি হয়, সেটাই চান তিনি।

ঢাকা এফএমে হ্যাপি নিজের প্রেম কাহিনি যেভাবে তুলে ধরেছেন, সেভাবেই বাংলামেইলের পাঠকদের জন্য তা প্রকাশ করা হলো-

প্রথম পরিচয়
হ্যাপি বলেন, এক বছর ধরে ওর সাথে পরিচয়। শুরুটা হয় ফেসবুকের মাধ্যমে। ও যে খেলোয়াড় এটা আমি জানতাম না। ওর বাড়ি বাগেরহাটে, আমার বাড়িও বাগেরহাটে। ক্রিকেট আমি ভালো বুঝিও না। প্রথমে ও আমাকে ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠায়। ও ছিল অন্য একটা জগতের মানুষ, আমি আরেক জগতের। এভাবে একটা সময় আমরা ফোন নম্বর চায় রুবেল। এর আগে শুরু থেকেই ফেসবুকে কথা হয়েছে। ওর ফোন পেয়ে প্রথমে খারাপ লাগতো ও বিরক্ত হতাম। তারপর থেকে আস্তে আস্তে সম্পর্ক হয়েছে।

মার্চের ৮ তারিখে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট গ্রহণ করি। ও খুব পাগলামি করতো। প্রায়ই ওর সাথে ঘুরতে বের হতাম। একদিন গাড়িতে করে ঘুরছিলাম। কোন কিছু নিয়ে খুব রাগ হওয়ায় আমি গাড়ি থেকে নেমে পড়ি। ঘটনাটি ঘটেছে স্টেডিয়ামের সামনে। সে আমার পেছন পেছন আসতে থাকে। হঠাৎ দেখি গাড়ি থেকে নেমে সে আমার রিকশা চালাতে শুরু করে। তখন বুঝলাম ও আমাকে সত্যি ভালোবাসে। আরেকদিন সে রাগ করে রাস্তায় বসে পড়লো, কিছুতেই উঠবে না। আর কোন কিছু হলেই কান্না শুরু করে দিত। এসব পাগলামি দেখে আমি বুঝতাম ও আমাকে সত্যি ভালোবাসে। এখন মনে হয় সবকিছু অভিনয় ছিল ওর।

ঢাকায় থাকলে প্রতিদিন ওর সাথে দেখা হতো। ওর সাথে অনেক ঘুরেছি। ওর সাথে সুন্দর সুন্দর মুহূর্ত জমা হয়ে আছে। ওইগুলো ভুলতে পারছি না। দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আসার পর ঈদের আগের রাতে আমি ওর জন্য একটি পাঞ্জাবি কিনেছি। সেই পাঞ্জাবি ওকে দিতে আমি বাগেরহাটে গিয়েছিলাম। বাসায় মিথ্যা কথা বলে আমি একাই রুবেলকে পাঞ্জাবি উপহার দিতে ওদের বাড়িতে গিয়েছি। কিন্তু সেটা আমি ওকে দিতে পারিনি। আমি সারা রাত কান্না করে পরে ঢাকায় ফিরে আসি। আমি ওকে বলতাম আমাকে বিয়ে করো। ও বলতো, আমি তোমাকে বিয়ে করবো।

ওর সব কথাই আমি শুনতাম। যখন যাই বলেতো তাই করতাম। বন্ধুদের সাথে দেখা করতে দিতো না আমাকে। একা একা মার্কেটে যেতে দিতো না। ওকে মনে হয়েছে ও শুধুই আমার, আর কারো নয়। আমরা অনেক দুষ্টামি করতাম। নয় মাসে ৯শত বার আমাদের মধ্যে ব্রেকআপ হয়েছে। এমন করতো তারপর আবার ফোন করে কাঁদতো।

আমি চাইতাম ওর সাথে সারাজীবন থাকবো। রুবেল প্রতিদিন নেশা করতো। অতিরিক্ত নেশা করতো। আমি তাকে নিষেধ করতাম।

সম্পর্কে ভাটা
হ্যাপি বলেন, যখন আমি জানলাম ওর ফ্যামিলি ওকে বিয়ে করাতে চাইছে। তখন আমি ওকে বলেছি, তুমি আমাদের সম্পর্কের কথা বাবা-মাকে জানাও। আমাদের স্বপ্নের কথা বলে দাও। কিন্তু সে জানায়নি। উল্টো আমাকে খারাপ মেয়ে বলে গালি দিয়েছে। মিডিয়ায় কাজ করলে নাকি আমরা খারাপ হয়ে যাই।

তারপরও আমি মনে করতাম, যেহেতু ভালোবেসে ফেলেছি এখন তো ফিরতে পারবো না। ওকে অনেক মিস করেছি। ওকে ছাড়া ভালো লাগতো না। ওর কথায় ফিল্ম ছেড়ে দিয়েছি। কিন্তু ওর মধ্যে কোন পরিবর্তন দেখিনি।

মামলার সিদ্ধান্ত
এ ব্যাপারটা বলতে গেলে অনেক কিছু চলে আসে। ওকে আমি এতো বেশি ভালোবাসি। কিন্তু ও বলে দেয়, আমাকে বিয়ে করা সম্ভাব নয়। অথচ তার সাথে তার বাসায় স্বামী-স্ত্রীর মতোই থাকতাম। বিয়ে না করার কথা শুনে আমি অন্যরকম হয়ে যেতাম। ওর বাবা-মা ছাড়া আমিই ওকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসতাম। ১ তারিখে হঠাৎ করেই বলেছে, তোমার সাথে আমার সম্পর্ক ব্রেকআপ। তখন বলে, তুমি আমাকে ফোন দিয়ো না। আমি তোমাকে বিয়ে করতে পারবো না।

একদিন আমাকে বলে আমি কয়েকটি মেয়েকে নিয়ে মদ খাচ্ছি। তখন রাতেই ওর বাসায় যাই। গিয়ে দেখি ওর বাসায় দুটি মেয়ের জুতা। ভেতরে গিয়ে দেখি মদের বোতল নিয়ে সবাই খাচ্ছে। সেখান থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমি আত্মহত্যা করবো। তখন আমি মদের বোতল ভেঙে নিজের হাত কেটেছি। এরপর আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। সকাল পর্যন্ত আমার জ্ঞান ফেরেনি।

যখন আমি বলেছি তার সাথে সম্পর্ক নেই। তখন অন্য ধরনের রূপ আমাকে দেখাতো। দুইদিন পর ফের ও আমাকে ফোন দিয়ে কান্না শুরু করে। তখন আমি সব ভুলে যাই। আমারও খারাপ লাগছে। মেয়ে দুটিকে দুই দিনের পরিচয়ে বাসায় সারা রাত রাখে। এ ব্যাপারটাই আমার কাছে মেনে নেয়া কঠিন ছিল। তখন ভাবলাম মানুষ তো একটু ভুল করেই! কিন্তু সত্যি সত্যি ও আমার সাথে নয় মাসে প্রেমের ম্যাচ খেলেছে।

ওর সাথে স্বামী-স্ত্রীর মতোই থেকেছি, কিন্তু আমিও বুঝতে পারতাম না যে আমি ভুল করে যাচ্ছি। আমার ভুল বোঝার মতো ক্ষমতাও ছিল না। মামলা করার আগের দিন সে বলেছে, আমাকে বিয়ে করতে পারবে না। তখন আমি ওকে বলেছি, কেন তুমি বিয়ে করবে না। এরপর মামলা করতে চেয়েছি। থানায় যাই। তখন থানা থেকে বিসিবিতে ফোন করে। তখন কিছু খেলোয়াড় বিষয়টা মীমাংসা করতে থানায় আসে। ওই সময় রুবেল বলে, আমি তোমাকে বিয়ে করবো। এরপর আমি সিদ্ধান্ত নেই মামলা করবো না।

কিন্তু তাতেও কোন কিছু বদলায় না। আবারও রুবেল বলে, বাবা-মা আমার বিয়ে ঠিক করেছে। বিশ্বকাপের পরেই ও বিয়ে করবে। এসময় ওকে বলি, আমাদের কথাগুলো রেকর্ড করা আছে। হঠাৎ সে পাল্টে যায়। অনেক ভালো ব্যাবহার করতে থাকে। মামলা করার আগেরদিন অনেক ভুলিয়ে-ভালিয়ে আমাকে তার বাসায় নিয়ে যায়, মোবাইলের অনেক কিছু ডিলিট করে দেয়। তখন আমি বলি তোমার সাথে আমার নয় মাসের কিসের সম্পর্ক ছিল? তখন সে বলে, তুমি মামলা করবে? কর, কিছুই করতে পারবে না। মামলা করে কিছুই হবে না। আমি তোমার বিরুদ্ধে এক কোটি টাকার মানহানি মামলা করবো।

অথচ তার সাথে অলিখিত স্বামী-স্ত্রী হিসাবে থাকতাম। ও আমাকে বউ বলে ডাকতো। আমি নিজেকেও তার স্ত্রী ভাবতাম। আমি এখন চাইলেও কাঁদতে পারি না। চাইলেও হাসতে পারি না।

এখন ওর কথা শুনলেই ঘৃণা হয়। ওকে আমি ঘৃণা করি। এখন সত্যি, রুবেল নামের এ মানুষের প্রতি ঘৃণা হয়। যে আমাকে নিয়ে খেললো। রুবেলের মতো জানোয়ারকে আমি আর কখনও বিয়ে করবো না।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print