শুক্রবার , ২০ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » ক্রিকেট » আর কখনোই খেলা হবে না ক্লার্কের?

আর কখনোই খেলা হবে না ক্লার্কের?

মাইকেল ক্লার্কঅনেক দিন ধরেই চোটের সঙ্গে লড়ছেন মাইকেল ক্লার্ক। শুরুতেই নির্বাচকেরা তাঁকে ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের ১২ সদস্যের দলে রেখেছিলেন। তবে শোনা গিয়েছিল, খেলার সম্ভাবনা তাঁর নেই। কিন্তু ফিলিপ হিউজের মৃত্যুর পর সব বদলে গেল।

অাবেগের এই টেস্টে ক্লার্ক থাকতে চাইলেন। খেললেন চোট নিয়েই, ব্যথানাশক ইনজেকশনের সাহায্যে। করলেন সেঞ্চুরিও। অদম্য ক্লার্ককে শেষ পর্যন্ত হার মানতে হলো চোটের কাছেই। ভারতের বিপক্ষে সিরিজের বাকি টেস্টগুলো তো খেলা হবেই না, সংশয় তাঁর ক্যারিয়ার নিয়েই!

ম্যাচ শেষে হতাশ কণ্ঠে এমনই ইঙ্গিত দিয়ে অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক নিজে বলেছেন, ‘স্ক্যানে ভালো কোনো সংবাদ নেই। সেখানে স্পষ্ট চিড় দেখা গেছে। বিশেষজ্ঞরা এটা দেখছে। আসলে বলতে পারছি না কত দিন আমাকে মাঠের বাইরে থাকতে হবে। বিশ্বকাপে আমাদের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ মাত্র আট সপ্তাহ বাকি। ত্রিদেশীয় সিরিজে থাকতে পারলে ভালো লাগত। বেশি ভালো লাগত বিশ্বকাপে খেলতে পারলে। আমাকে অপেক্ষা করতে হবে। দেখি কী হয়।’ এর পরই সেই অনিশ্চয়তাসূচক মন্তব্য, ‘সন্দেহ নেই, বিশ্বকাপ না খেলার শঙ্কা রয়েছে।

এমনকি আমার আর কখনোই না খেলারও শঙ্কাও আছে। আশা করি এমনটা হবে না। তবে মাঠে ফিরতে সাধ্যের সর্বোচ্চ চেষ্টাই করব। তবে আমাকে বাস্তববাদীও হতে হবে।’

২০১২ সালের পর এ পর্যন্ত সাত-সাতবার চোটাক্রান্ত হয়েছেন ক্লার্ক। এ বছরই চারবার! বেশির ভাগ সময় পিঠে ও হ্যামস্ট্রিং চোটে আক্রান্ত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। এ টেস্টটাও খেললেন তীব্র ব্যথা নিয়ে। যদিও ক্লার্ক বলছেন, ‘এ ম্যাচটা খেলা নিয়ে আমার কোনো অনুতাপ নেই। স্বেচ্ছায় অবসর নিয়ে (প্রথম ইনিংসে ৬০ রান করে) আমার মাঠে ফেরা নিয়েও অনুতাপ নেই। অনেক কৃতজ্ঞতা অ্যালেক্স কনটরিস (ফিজিও) ও চিকিৎসক পিটার ব্রুকনারকে। এ টেস্টে আমার মাঠে নামতে তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। এরপর কিছু রান করেছি। আমাকে বিশেষজ্ঞদের কথামতো চলতে হবে। আশা করি, এ গ্রীষ্মে আবারও খেলার সুযোগ পাব।’
ক্লার্কের চোটের কারণে দলে সুযোগ পেয়েছেন শন মার্শ। সূত্র: এএফপি, ক্রিকইনফো।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print