মঙ্গলবার , ২৪ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » জাতীয় » ২ থেকে ৩ মাসের মধ্যেই ডিসিসি নির্বাচন

২ থেকে ৩ মাসের মধ্যেই ডিসিসি নির্বাচন

সুরঞ্জিত সেনগুপ্তআওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্যি এবং আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন, ‘আগামী দুই থেকে তিন মাসের মধ্যেই দুই ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন হবে। সেই লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পূর্ণউদ্যমে কাজ করে যাচ্ছে।’

শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বীর উত্তম খাজা নিজাম উদ্দিন মিলনায়তনে বিজয়ের ৪৩ বছর উৎযাপন উপলক্ষে ‘বাংলাদেশ স্বাধীনতা লীগ’ আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

সুরঞ্জিত বলেন, ‘কিছুদিন আগে প্রথানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বচান কমিশনকে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। আর তাতেই আপনারা বলতে শুরু করেছেন এই নির্বাচন আন্দোলন নষ্ট করার জন্য দেয়া হচ্ছে। আমাদের নির্বাচন দিলেও দোষ, না দিলেও দোষ। আমি স্পষ্ঠ ভাষায় বলতে চাই, আগামীতে স্থানীয় নির্বাচনসহ জাতীয় নির্বাচন এই সরকারের অধিনেই হবে এবং সেই নির্বাচনে সকল দল অংশগ্রহণ করবে। বেগম খালেদা জিয়াও সেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে আমার ধারণা। কারণ ন্যাড়া একবারই বেল তলায় যায়। অতীতে যে ভূল করেছে তা বার বার করবেন না তিনি।’

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘ঢাকা সিটির নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরোপেক্ষভাবে হবে, সেই নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিন। অতীতে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে যে সহিংসতা ও নৈরাজ্যের পথ অনুস্মরণ করেছিলেন তা পরিহার করুন।’

আন্দোলন সম্পর্কে সুরঞ্জিত বলেন, ‘তারা আগে বলেছে, এরপরে আন্দোলন ওরপরে আন্দোলন। একসময় বললো ঈদের পরে আন্দোলন। ঈদের পর কিছু হলো না। এখন বলছে আগামী জানুয়ারিতে আন্দোলন। এখন মধ্য ডিসেম্বর চলে অথচ কোনো আওয়াজ দেখা যায় না। সুতরাং এটাও আগের মত ফাঁকা আওয়াজ হবে।’ এতগুলো দলছুট নেতা নিয়ে যেই দল গঠিত তাদের নিয়ে আন্দোলন করা যাবে না বলেও মনে করেন তিনি।

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচার নিয়ে কাদের মোল্লার ছেলের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘যে বিচার বিশ্ববাসী দেখেছে, ট্রাইবুন্যাল রায় দেয়ার পর উচ্চ আদালতে আপিল হয়েছে। সেই বিচার নিয়ে সে বলে তার বাবাকে হত্যা করা হয়েছে। এটা কতো বড় স্পর্ধার বিষয়।’

তিনি বলেন, ‘নিশ্চয়ই এর পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র আছে। অবশ্যই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি।’ তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও আনমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ মো. রফিক উল্যাহ ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কার্যকরী পরিষদ সদস্য সুজিত রায় নন্দি, সংগঠনের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খান রাজিব, পরশুরাম উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার প্রমুখ।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print