বৃহস্পতিবার , ১৯ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » টেনিস » আমেরিকা পাশে না থাকলে শেষ হয়ে যাব না : প্রধানমন্ত্রী

আমেরিকা পাশে না থাকলে শেষ হয়ে যাব না : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীএকাত্তরে আমেরিকার ভূমিকার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তখন দেশটি বিরোধিতা করলেও বাংলাদেশ শেষ হয়ে যায়নি, এখনো পাশে না থাকলে টিকতে পারবে বাংলাদেশ।

শুক্রবার বিকালে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) ১৮তম শীর্ষ সম্মেলন এবং মালয়েশিয়া সফর নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন যাতে না হয় সে জন্য সব রকম চেষ্টা আমেরিকা করেছিল বলে অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “প্রত্যেকটা নাগরিককে বলব, এটা স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ। সে মর্যাদা নিয়ে চলতে হবে। কেউ পাশে থাকলে বাঁচব, না থাকলে মরে যাব, এটা ঠিক না।”

শেখ হাসিনা বলেন, “আমেরিকার যে সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশে এসেছিলেন, তিনি বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপির নেত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। কেউ যদি কোনো মতামত দিয়ে থাকেন তাহলে সে দায়িত্ব তার। তাকে গিয়ে জিজ্ঞাসা করেন।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট বোর্ডের অনুমোদন ছাড়াই পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছিলেন। আর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের নির্দেশেই তা করা হয়েছিল বলে শোনা গেছে।” তিনি আরো বলেন, “আমাদের বিরুদ্ধে অপবাদ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সারা বিশ্ব তন্ন তন্ন করে খুঁজেও প্রমাণ পায়নি।”

কোনো সমস্যা হলেই কূটনৈতিক সম্পর্ক খারাপ হয়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “একটা দেশ পাশে না থাকলে আমরা একেবারে শেষ হয়ে যাব?…একাত্তরেও যুক্তরাষ্ট্র বিরুদ্ধে ছিল, বাংলাদেশ শেষ হয়ে যায়নি। মুক্তিযুদ্ধের সময় যদি আমরা লড়াই করে টিকে থাকতে পারি, তাহলে স্বাধীন দেশ হিসেবে এখনো পারব।”

শেখ হাসিনা বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রেও বাংলাদেশের বন্ধু রয়েছে। তাদের সহযোগিতা বাংলাদেশ সব সময় পেয়েছে।” ভালো থাকলে বন্ধুর অভাব হবে না বলেও মন্তব্য করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

তার সরকারের পররাষ্ট্রনীতি অত্যন্ত স্বচ্ছ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটা পূর্ব না পশ্চিম, উত্তর না দক্ষিণ- তা আমি বিবেচনায় নিতে চাই না।…বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের স্বার্থে যদি কারো সাথে সম্পর্ক আরো গভীর করতে হয়, তা করব।”

সংবাদ সম্মেলনের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আওয়ামী লীগের নেতা ফারুক খান, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print