মঙ্গলবার , ১৭ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » বাড়ছে না হজের খরচ

বাড়ছে না হজের খরচ

Hajj-packageআগামী বছর হজের খরচ বাড়ছে না। চলতি বছরের মতো আগামী বছরও দুটি প্যাকেজে একই খরচ থাকছে বলে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে। হজ প্যাকেজ আগামী সোমবার মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের জন্য উঠছে।

এবার সমাপ্ত হজে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ-১ এর মাধ্যমে হজ পালনে খরচ হয় তিন লাখ ৫৪ হাজার ৩১৬ টাকা। অপরদিকে প্যাকেজ-২ এর মাধ্যমে খরচ হয় দুই লাখ ৯৫ হাজার ৭৭৬ টাকা। দুটি প্যাকেজেই কোরবানির জন্য আলাদা ১০ হাজার ৫০০ টাকা (৫০০ রিয়াল) নিতে হয়েছে।

ধর্ম সচিব চৌধুরী মো. বাবুল হাসান  বলেন, আগামী সোমবার হজ প্যাকেজ মন্ত্রিসভায় উঠবে বলে আশা করছি।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের উপসচিব (হজ) জাহাংগীর আলম  বলেন, খরচ গত বছরের মতো রেখেই দুটি হজ প্যাকেজ মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের জন্য পাঠাচ্ছি আমরা। ডলার ও রিয়ালের বিনিময় হার গত বছরের মতো থাকায় মূলত খরচ এবার বাড়ছে না। বিমান ভাড়া গত বছরের মতো এক হাজার ৫০০ ডলার থাকছে।

এবার হজ ব্যবস্থাপনা পাল্টে যাচ্ছে জানিয়ে উপসচিব বলেন, মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পরদিনই আমরা টাকা জমা দেওয়া, নিবন্ধনের বিষয়ে নোটিশ জারি করব।

মন্ত্রিসভায় হজ প্যাকেজ অনুমোদনের পর থেকে এবার আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত টাকা জমা দেওয়া যাবে বলেও জানান তিনি।

জাহাংগীর আলম বলেন, এবার নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এমআরপি (মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট) পাসপোর্টসহ রেজিস্ট্রেশন না করলে কোনো অবস্থায় হজে যাওয়া যাবে না।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সৌদি সরকারের অনলাইন হজ ব্যবস্থাপনার সঙ্গে সঙ্গতি রাখতে বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হচ্ছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, দুটি হজ প্যাকেজেই খরচের মধ্যে থাকবে বিমান ভাড়া, স্থানীয় সার্ভিস চার্জ (আইডি কার্ড, কব্জিবেল্ট, কিটব্যাগ, হজ ও ওমরাহ সংক্রান্ত পুস্তিকা, আইটি সার্ভিস, হজ ক্যাম্পে আবাসন ও প্রচারণাসহ হজযাত্রীদের সেবা প্রদান ইত্যাদি), হজযাত্রীদের কল্যাণ তহবিল (আপদকালীন ফান্ড) ও প্রশিক্ষণ ফি।

এ ছাড়া থাকবে মোয়াল্লেম ফি (মিনা-আরাফায়ে তাবু ভাড়া এবং জেদ্দা-মক্কা-মদিনা ও আল-মাশায়েরে যাতায়াত ও পরিবহন ফি, সার্ভিস চার্জ, জম জমের পানির মূল্য ইত্যাদি), মিনা-আরাফা ও আরাফা-মুযদালিফা-জামারার ট্রেন ভাড়া।

সৌদি আরবে মোয়াল্লেম এবং মোয়াচ্ছাছাকে প্রদেয় অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ, মক্কা ও মদিনায় বাড়ি ভাড়া, খাওয়া খরচ, ব্যাগ সরবরাহ ও হজ গাইড বাবদ খরচও হজ প্যাকেজে অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

চলতি বছর সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীরা ১ জুন পর্যন্ত হজের টাকা (মোয়াল্লেম ফি, বাড়ি ভাড়া, অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ, বিমান ভাড়া ও অন্যান্য টাকা) জমা দেয়। সাধারণত মার্চ মাসে মন্ত্রিসভায় হজ প্যাকেজ অনুমোদন পায়। এবার ১০ মার্চ হজ প্যাকেজ অনুমোদন দিয়েছিলো মন্ত্রিসভা।

বিদ্যমান কোটা অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে আবারও এক লাখ এক হাজার ৭৫৮ জন হজ করার জন্য সৌদি আরব যেতে পারেন। আগামী ৬ বা ৭ ফেব্রুয়ারি সৌদি সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশের হজচুক্তি হওয়ার কথা রয়েছে।

আগামী বছরের সেপ্টেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে (৯ জিলহজ হজ) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print