শুক্রবার , ২০ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » ক্রিকেট » শেষ মুহূর্তে বুসকেটসের গোলে বার্সার জয়

শেষ মুহূর্তে বুসকেটসের গোলে বার্সার জয়

barsaসার্জিও বুসকেটস। স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনার মিডফিল্ডার। সবশেষ তিনি কবে গোল পেয়েছিলেন সেটার হিসাব হয়তো তার নিজেরও জানা নেই। থাকবে কি করে? সবশেষ তিনি যে গোলটি করেছিলেন সেটা দিনের হিসাবে ৪২০ দিন আগে । আর মাসের হিসাবে ১৪ মাস আগে। তবে দীর্ঘ সময় পর এমন এক গোলের দেখা পেলেন, যাকে মিরাকল গোল না বললে ভুল হবে।
রোববার ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে মেসি-নেইমার-সুয়ারেজদের সব চেষ্টাই যখন ব্যর্থ। নিষ্প্রাণ গোলশূন্য ড্রয়ের দিকে এগিয়ে চলছে ম্যাচ। রেফারি প্রদত্ত ৬ মিনিটের ইনজুরি টাইমের যখন ৪ মিনিট শেষ। সেই মুহূর্তে সবাইকে বিস্মিত করে দিয়ে বার্সার ত্রাতা হয়ে দেখা দেন সার্জিও বুসকেটস। ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে তার দেয়া গোলেই শেষ পর্যন্ত পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছেড়েছে বার্সেলোনা। আর চলতি মৌসুমে ঘরের মাঠে প্রথম হারের স্বাদ নিয়েছে ভ্যালেন্সিয়া।
অবশ্য বুসকেটসের এই গোলটির পেছনে অবদান ছিল বেশ কয়েকজনের। লিওনেল মেসি ভ্যালেন্সিয়ার ডি বক্সের ডান প্রান্ত থেকে উঁচু করে বল নেইমারকে দেন। উড়ে আসা বলে নেইমার গোলরক্ষকের খুব কাছ থেকে হেড দেন। ভ্যালেন্সিয়ার গোলরক্ষক দিয়েগো আলভেস সেটা রুখে দেন। গোলরক্ষকের হাত থেকে ফিরে আসা বলে বাম পায়ের শট দিয়ে নিশানা ভেদ করেন বুসকেটস।
অবিশ্বাস্য গোল উদযাপনে বার্সা শিবির যখন ব্যস্ত, তখন গ্যালারি থেকে কেউ একজন কিছু একটা ছুড়ে মারেন। সেটা মেসির মাথায় আঘাত করে। মেসি বার বার মাথায় হাত দিয়ে দেখছিলেন রক্তপাত হচ্ছে কিনা।

 

লা মাসিয়া থেকে স্নাতক করার পর বার্সেলোনায় যোগ দেন বুসকেটস। অনেকদিন ধরেই কাতালানদের হয়ে খেলছেন তিনি। একজন মিডফিল্ডার হিসাবে বার্সার জার্সি গায়ে এর আগে ৫টি গোল করেছিলেন তিনি। রোববার ষষ্ঠ গোলটি করলেন।

 

ম্যাচ শেষে উচ্ছ্বসিত বুসকেটস বলেন, ‘ড্র কখনোই আমাদের জন্য ভালো নয়। আমরা এই গোলটির জন্য শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করেছি। শেষ পর্যন্ত গোলটির কারণে মিষ্টি তিনটি পয়েন্ট পেয়েছি। এটা আমাদেরকে বোনাস আনন্দ, উৎসাহ ও ইচ্ছা শক্তির যোগান দিচ্ছে।’
এই জয়ের ফলে ১৩ ম্যাচ থেকে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে বার্সেলোনা। রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে তারা ২ পয়েন্টে পিছিয়ে। ঘরের মাঠে মৌসুমের প্রথম হারের স্বাদ নিয়ে ভ্যালেন্সিয়া নেমে গেছে পয়েন্ট টেবিলের পঞ্চম স্থানে।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print