মঙ্গলবার , ১৭ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » জ্ঞান-বিজ্ঞান » বাংলাদেশি জ্যোতির্বিজ্ঞানীর বিষ্ময়কর সাফল্য

বাংলাদেশি জ্যোতির্বিজ্ঞানীর বিষ্ময়কর সাফল্য

12400615_10153556570419807_3606522993866689841_nপৃথিবীর এক হাজার আলোকবর্ষ দূরত্বের মধ্যে সবচেয়ে উজ্জ্বল আর সবচেয়ে বড় নক্ষত্রের নাম ইটা কারিনা। ১৯ শতকের মধ্যভাগে নক্ষত্রটি থেকে অতিরিক্ত মাত্রায় উদগিরনের জন্য এটি পৃথিবীতে আলোচিত হয়েছিল। বিস্ফোরিত গ্যাস এবং ধূলিকনা এখনো পুরো নক্ষত্রটিকে ঘিরে রেখেছে। এতদিন ধারণা করা হতো ইটা কারিনার মতো সুপারস্টার বা মহাতারকা একটিই আছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা’র ‘স্পিটজার এন্ড হাবল স্পেস টেলিস্কোপ’র সাহায্যে অন্য ছায়াপথে এই প্রথম ইটা কারিনার মতো আরো পাঁচটি নক্ষত্রের অস্তিত্ব সনাক্ত করা গেছে।

নাসার যে গবেষণা দলটি এ পাঁচটি নক্ষত্রের সন্ধান পেয়েছে, সে গবেষণা দলের নেতৃত্বে ছিলেন বাংলাদেশি জ্যোতির্বিজ্ঞানী রুবাব খান।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত আমেরিকান অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটির বার্ষিক সভায় পুরো বিশ্বকে চমকে দেওয়ার মতো এই ঘোষণা দেন মাত্র ২৯ বছর বয়সী এ বাংলাদেশি বিজ্ঞানী।

ইটা কারিনার দূরত্ব পৃথিবী থেকে সাড়ে সাত হাজার আলোকবর্ষ দূরে এবং এটি সূর্যের চেয়ে ৫০ লক্ষ গুন বেশি উজ্জ্বল। ১৩ লাখ গ্রহকে নিয়ে সেই নক্ষত্রটির জগৎ। এখন, এমনই আরো পাঁচটি নক্ষত্র আবিষ্কার করলেন রুবাব খানের নেতৃত্বাধীন গবেষণা দল।

ইনসাইড সাইন্সে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ড. রুবাব খান বলেন, ইটা কারিনা একমাত্র অদ্ভুত নিদর্শন নয়। বরং এই আবিষ্কার প্রকৃতিতে ইটা কারিনার মত আরো বেশ কিছু অদ্ভুত মহা তারকার উপস্থিতি নিশ্চিত করছে। এই আবিষ্কারের মাধ্যমে মহাতারকা নিয়ে গবেষণার একটি নতুন ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় পাঁচটি মহাতারকা আবিষ্কার সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘প্রথমে আশা করেছিলাম একটি নক্ষত্রের সন্ধান পাওয়া যাবে। কিন্তু পরবর্তীতে একাধিক নক্ষত্রের খোঁজ পেলাম। তবে ৫টি সুপার স্টারের সন্ধান পাওয়ার পর আমরা বিস্মিত হই।

 


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print