সোমবার , ২৩ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » ক্রিকেট » বরিশাল ফাইনালে, বিদায় রংপুরের

বরিশাল ফাইনালে, বিদায় রংপুরের

বরিশাল বুলসবরিশালের কাছে ৫ উইকেটে হেরে বিদায় নিল সাকিবের রংপুর রাইডার্স। সাব্বির-শাহরিয়ার নাফিসের ১২৪ রানের পার্টনারশিপে জয় পায় বরিশাল বুলস।

শুরুটা অনেক বড় কিছুর স্বপ্নই দেখিয়েছিল রংপুর রাইডার্সকে। স্কোর বোর্ডে তার প্রতিফলন অবশ্য নেই। উইকেট, কন্ডিশন বিচারে শেষ পর্যন্ত অস্বস্তিতে নেই সাকিব আল হাসানের দল। রোববার মিরপুরে ৯ উইকেটে ১৬০ রান করেছে রংপুর। ফাইনালে যাওয়ার মঞ্চ কোয়ালিফায়ার টু ম্যাচে রোববার ক্রিস গেইল বিহীন বরিশাল বুলসকে ১৬১ রানের টার্গেট দিয়েছে দলটি।

রংপুরের ইনিংসটা শুরুই হয়েছিল চমক দিয়ে। প্রথম চমকটা দিয়েছেন অধিনায়ক সাকিব। বিপিএলে যেখানে টস জিতে ফিল্ডিংই ম্যাচ জয়ের মন্ত্র হয়ে উঠেছিল। সেখানে সাকিব ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন। এরপর রংপুরের ওপেনিং জুটিও চমকে দিয়েছে সবাইকে। লেন্ডল সিমন্সের সঙ্গে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে আসেন গোটা বিপিএলে সাইড বেঞ্চে বসে থাকা আব্দুল্লাহ আল মামুন রাসেল।

আনকোরা রাসেলের একাদশে অন্তর্ভুক্তি শাপেবরই হয়েছে রংপুরের জন্য। ইনিংসের শুরুতে উইকেট পতনের ধারা থামানোর সঙ্গে দলকে বড় রানের ভিতও গড়ে দেয় সিমন্স-রাসেলের জুটি। দলীয় ৫২ রানে সেকুগে প্রসন্নর বলে বোল্ড হন রাসেল। তিনি ২৩ বলে ২০ রান করেন। রাসেলের বিদায়ের পর বরিশালের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে রানের চাকা শ্লথ হয়ে আসে রংপুরের। একপ্রান্তে সিমন্স অবশ্য আক্রমণ চালিয়ে গেছেন।

৪৩ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন এ ক্যারিবিয়ান। ইনিংসের ১৭তম ওভারে সামির বলে বোল্ড হওয়ার আগে ৫৭ বলে ৭৩ রান (৯ চার, ২ ছয়) করেছেন সিমন্স। তার আগে সৌম্য (৬), অধিনায়ক সাকিব (১৩) উইকেট বিলিয়ে ফিরেছিলেন। কেভন কুপারের দ্বিতীয় শিকার হন থিসেরা পেরেরা (৫)।

তবে রংপুরের স্কোরটা আরও দূরে যেতে পারতো। কুপারের করা শেষ ওভারে ১৩ রান তুললেও চার উইটে হারিয়েছে দলটি। যার মধ্যে দুটি রান আউট। প্রথম বলে চার, দ্বিতীয় বলে নবী (৮) আউট। তৃতীয় বলে স্যামির ছক্কা। চতুর্থ বলে আউট হলেও স্যামির ১০ বলে ২৩ রানের ক্যামিওতে দেড়শো পার হয় রংপুরের স্কোর। পঞ্চম ও ষষ্ঠ বলে মিঠুন-সাকলাইন সজীব রানআউট হন। বরিশালের কুপার ৪ উইকেট পান।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print