মঙ্গলবার , ১৯ জুন ২০১৮
মূলপাতা » ক্রিকেট » ২য় ওয়ানডেতে বাংলাদেশের ৬৮ রানে জয়

২য় ওয়ানডেতে বাংলাদেশের ৬৮ রানে জয়

বাংলাদেশবাংলাদেশের দেওয়া ২৫২ রানের জবাবে জিম্বাবুয়ে ১৮৩ রানে অল আউট হয়ে গেছে। বাংলাদশ দ্বিতীয় জয়ে ব্যবধান ৬৮ রানের। জিম্বাবুয়ের পক্ষে মোরে হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে চাকাভা এবং চিগাম্বুরা কিছুক্ষণ উইকেট আগলে রাখার চেষ্টা করেছেন। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ উইকেট নিয়েছেন স্পিনার আরাফাত সানি। তার ৪ উইকেটের পরেই রয়েছেন মাশরাফি। নিয়েছেন ৩ উইকেট। একটি রান আউটের সঙ্গে সাকিব এবং আল-আমিন তুলে নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।

প্রথম ওভারেই সাজঘরে ফিরেছেন হ্যামিল্টিন মাসাকাদজা। প্রথম ওভারের শেষ বলে মাশরাফির বলে বিভ্রান্ত হয়ে সাজঘর দেখেছেন ইনফর্ম ব্যাটার। এরপর মাশরাফির দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়েছেন সিবান্দা। সিবান্দা ২১ রান করে মাশরাফির বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন। এক মাশরাফিতে বিপাকে পড়েছে সফরকারীরা। তৃতীয় উইকেটটি মাহমুদউল্লার হাত হয়ে তুলে নিয়েছেন অধিনায়ক মাশরাফি। ফিরে গেছেন সিকান্দার রাজা (১৬)। এই উইকেটে নাম লিখিয়েছেন স্পিনার আরাফাত সানি। তার ঘুর্ণিতে বধ হয়েছেন টেলর (৮)। উইকেটে প্রায় থিতু হয়ে যাওয়া চাকাভাকে (৩২) ফিরিয়েছেন পেসার আল-আমিন। চাকাভা মোরে জুটিতে ৬৫ রান যোগ হয়েছে জিম্বাবুয়ের ঝুলিতে। কঠিন মুহূর্তে হাফসেঞ্চুরি করা মোরেকে ফিরিয়ে দিয়েছেন সাকিব।

প্রথম ম্যাচের বড় জয়ের পর দ্বিতীয় ম্যাচে ২৩ বলে ৩৩ রানের দারুণ উপযোগী এক ইনিংস খেলেছেন মুমিনুল হক। বলা দারুণ সূচনা-মহামরকের পর তার ব্যাটে ভর করেই জিম্বাবুয়েকে জয়ের জন্য ২৫২ রানের টার্গেট দিয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। রবিবার চট্টগ্রামের মাটিতে হঠাৎ করেই যেন বাংলাদেশের ব্যাটিং ইনিংসের দৃশ্যপট পাল্টে গেছে! দারুণ সূচনার পর সাইক্লোন নেমে এসেছে বাংলাদেশ ইনিংসে। সর্বশেষ ওই তালিকায় যুক্ত হয়েছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্তুজা। এর আগে একে একে এই তালিকা দীর্ঘ করেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান; তার আগে ওপেনার এনামুল হক ব্যক্তিগত ৮০ রানে আউট হয়েছেন। এরও আগে আউট হয়েছেন তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান। ১৫৮ রান থেকে ২০৪ রান; অর্থাৎ ৪৬ রান তুলতে ৭ উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। সেখান থেকেই মুমিনুলের চোখ ধাঁধাঁনো ব্যাটিং শুরু করেছেন। যেখানেই ২৫০ প্লাস রান ছুঁয়ে দেখেছে বাংলাদেশ।

সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে দুরন্ত সূচনা এনে দিয়েছেন দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ও এনামুল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৫৮ রানের জুটি গড়েছেন এই দুই ব্যাটসম্যান। উদ্বোধনী জুটিতে এনামুল-তামিমের ১৫৮ রান দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ১৯৯৯ সালে মেহরাব-শাহরিয়ার উদ্বোধনী জুটিতে ১৭০ রান তুলেছিলেন এই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই। বরিবার সেই রেকর্ড ভাঙার উপলক্ষ আসি আসি করেও আসেনি। বরং ১৫৮ রানে জোড়া আঘাতে জর্জরিত হয়েছে বাংলাদেশ। পরপর ২ উইকেট তুলে নিয়েছে জিম্বাবুয়ের বোলাররা। ৩৩তম ওভারের শেষ বলে দলীয় ১৫৮ রানে তামিমের উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। ব্যক্তিগত ৭৬ রানে রান আউট হয়েছেন তামিম। পরের ওভারের প্রথম বলেই দলীয় একই স্কোরে প্রথম ম্যাচের জয়ের নায়ক সাকিব আল হাসানের উইকেটও হারিয়েছে। ১৫৮ থেকে ১৭৩-এই ১৫ রানের মধ্যেই মোট ৪ উইকেট হারাতে হয়েছে বাংলাদেশকে। মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ জুটি বেধে বিপদ সামলানোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু দ্রুত গতিতে রান তুলতে গিয়ে মুশফিক আউট হয়ে গেছেন ব্যক্তিগত ২৭ রানে। দলীয় স্কোর তখন ৪৩.১ ওভারে ২০৪ রান। এক বল পরেই সাজঘরের পথ ধরেছেন মাহমুদউল্লাহও। তবে মুমিনুল ও পেসার রুবেল মিলে নির্ধারিত ৫০ ওভারে দলীয় স্কোরকে টেনে নিয়েছেন দ্রুত গতিতেই; ৭ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ সংগ্রহ করেছে ২৫১ রান।

বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার ৫ ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচটি চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের মাঠে গড়িয়েছে রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টায়। টসে জিতে ব্যাটিংয়ের নিয়েছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্তজা। একাদশে কোনো পরিবর্তন না এনেই দ্বিতীয় ওয়ানডেতে নেমেছে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়েও তাদের দলে কোনো পরিবর্তন আনেনি।

উল্লেখ্য, ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে প্রথমটিতে ৮৭ রানের জয়ে সিরিজে বর্তমানে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ দল : তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, মুমিনুল হক, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, মাশরাফি বিন মর্তুজা, আল-আমিন হোসেন, আরাফাত সানী ও রুবেল হোসেন।

জিম্বাবুয়ে দল : হ্যামিলটন মাসাকাদজা, সিকান্দার রাজা, ভুসিমুজি সিবান্দা, বেন্ডন টেলর, চাকাবা, চিগাম্বুরা, সোলোমোন মোরে, পানিয়াঙ্গারা, নিয়ম্বু, চাতারা ও কামুঞ্জোজি।

 


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print