শুক্রবার , ২২ জুন ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » ট্যানারি স্থানান্তরের শেষ সময় ৩১ ডিসেম্বর

ট্যানারি স্থানান্তরের শেষ সময় ৩১ ডিসেম্বর

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুচলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর মধ্যে রাজধানীর হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি কারখানা স্থানান্তরের ডেট লাইন দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। এ সময়রে মধ্যে যারা স্থানান্তর করবে না তাদের প্লট বরাদ্দ বাতিল করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি করেছেন তিনি। মঙ্গলবার শিল্পমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ট্যানারির মালিক নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ও সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা জানান।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, পরিবেশগত কারণে বিদেশিরা চামড়া কিনছে না। তাই ট্যানারি কারখানা স্থানান্তরের প্রতি বিশেষ তাগিদ দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়। কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের (সিইটিপি) কাজ চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে। ফলে ১০০টি ট্যানারি কাজ শুরু করতে পারবে।

উল্লেখ, উচ্চ আদালতের নির্দেশে পরিবেশ দূষণের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সরকার ২০০৯ সালে হাজারীবাগের চামড়া শিল্প স্থানান্তরের উদ্যোগ নেয়। এ জন্য কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের (সিইটিপি) আওতায় সাভারে চামড়া শিল্প নগরী গড়ে তোলা হয়। কিন্তু ট্যানারি মালিকদের অনীহা ও একের পর এক অজুহাতের কারণে কারখানাগুলো সাভার শিল্প নগরীতে স্থানান্তর করা সম্ভব হয়নি। ফলে এটা নিয়ে সরকার এক ধরনের অস্বস্তিতে রয়েছেন। আবার চামড়া শিল্পকে পরিবেশবান্ধব করাসহ প্রয়োজনীয় কমপ্লায়েন্স নিশ্চিতে ইউরোপীয় ক্রেতাদের দিক থেকেও ওই এলাকায় ট্যানারি কারখানাগুলো স্থানান্তরের চাপ রয়েছে। এমনকি পরিবেশবান্ধব পরিকল্পিত শিল্পের শর্ত পূরণে ব্যর্থ হলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে রফতানি নিষেধাজ্ঞারও আশঙ্কা রয়েছে। যে কারণে ট্যানারি কারখানাগুলো স্থানান্তর জরুরি বলে মনে করছে সরকার।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print