শনিবার , ২১ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » দিনেদুপুরে মাজারে ঢুকে দুইজনকে গলাকেটে হত্যা

দিনেদুপুরে মাজারে ঢুকে দুইজনকে গলাকেটে হত্যা

murderচট্টগ্রামে দিনে-দুপুরে নিজের আস্তানায় নৃশংসভাবে খুন হয়েছেন রহমত উল্লাহ প্রকাশ ন্যাংটা ফকির (৫০) নামে এক ব্যক্তি ও তার খাদেম আবদুল কাদের (২৭)।
শুক্রবার বেলা দুইটার দিকে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী থানার বাংলাবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
এ সময় আশপাশের মানুষ হামলাকারীকে ধাওয়া করলে চাপাতি দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ও ককটেল হামলা চালিয়ে সে এক শিশুসহ আরও দুজনকে আহত করে।
আহতরা হলেন- মনির হোসেন (২৭) ও মুন্না (১০)। আহত মনির হোসেনকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ও শিশু মুন্নাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
পুলিশ ঘাতকের ফেলে যাওয়া একটি লাল টি-শার্ট উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।
স্থানীয় লোকজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়,  দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে রহমত উল্লাহ ওরফে ন্যাংটা ফকির নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী থানাধীন বাংলাবাজার এলাকার নাগরিক সোসাইটি এলাকায় বসবাস করছিলেন। এর আগে রহমত উল্লাহ থাকতেন চট্টগ্রামের অন্যতম অলি হযরত বায়েজিত বোস্তামী (রহ.) এর মাজারে। লম্বা ও জট চুলের অধিকারী এই ফকিরের বাড়ি কোথায় কেউই জানেন না।
ঘটনার পর পরই ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম ও অপারেশন ) দেবদাস ভট্টাচার্য, ডিসি (উত্তর) পরিতোষ ঘোষ, নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার এস এম তানভীর আরাফাত, বাবুল আক্তার ও পাঁচলাইশ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার দীপক জ্যোতি খীসা। একই সঙ্গে ছুটে আসেন র‌্যাব, সিআইডি ও পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) টিমের সদস্যরা।
নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম ও অপারেশন) দেবদাস ভট্টাচার্য বলেন, আমরা একাধিক মোটিভ মাথায় নিয়ে কাজ করছি। হত্যাকাণ্ডের কারণ ব্যক্তিগত স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় হতে পারে। আবার মাজার বিরোধী কোনো অপশক্তিও জড়িত থাকতে পারে।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print