মঙ্গলবার , ২৪ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » রাজশাহীতে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭

রাজশাহীতে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

রাজশাহীর পুঠিয়ায় বালুবাহী ট্রাকের ধাক্কায় যাত্রীবাহী ভ্যানের সাতজন যাত্রী নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকেল সোয়া ৫টার দিকে পুঠিয়ার মালিপাড়া তেববাড়িয়া এলাকায় এ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে দুইজন নারী ও দুইজন শিশু রয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা নিশ্চিত করেছেন। ভ্যানে থাকা সাতজনের মধ্যে সকলেই ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। আরেকটি সূত্র দাবি করেছে নিহতদের মধ্যে ছয়জন একই পরিবারের সদস্য। তারা দাওয়াত খেয়ে বাড়িতে ফিরছিলেন।

নিহতরা হলেন পুঠিয়ার দাসমাড়িয়া এলাকার বিমল ঠাকুরের স্ত্রী সুমি (২৮), ছেলে রুদ্র (৫), নিহত সুমির ভাইয়ের মেয়ে পূজা (১০), বিদ্যুৎ (৩৫), বিদ্যুতের স্ত্রী বৃষ্টি (২৫)। অন্য দুইজনের নাম জানা যায়নি। তবে তিনি ভ্যানচালক বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি-তদন্ত) হাফিজুর রহমান হতাহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, লাশ উদ্ধার করা হচ্ছে। ট্রাক চালককে আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে।

এদিকে এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয় জনতা ট্রাকটিকে আটক করে তাতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। এনিয়ে ওই এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে গেলেও ক্ষুব্ধ জনতার রোষাণলে পড়ে তারাও জ্বলন্ত ট্রাকটির কাছে পৌঁছাতে পারেন নি।

প্রায় আধাঘণ্টা পরে তাহেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি একটু শান্ত হয়। এরপর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ট্রাকটির আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে তার আগেই অধিকাংশ পুড়ে যায়। তবে ট্রাকের চালক আটক হয়েছে কী না নিশ্চিত হওয়া যায় নি। তবে চালক পালিয়ে পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে এমন ধারণা থেকে  স্থানীয়রা ওই বাড়িটি ঘিরে রেখেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিকেলে বালুবাহী ট্রাকটি তাহেরপুরের উদ্দেশে যাচ্ছিল। এসময়  ট্রাকটি যাত্রীবাহী ভ্যানকে ধাক্কা দিলে ভ্যানের ছয়জন যাত্রী ঘটনাস্থলে নিহত হন। তাদের লাশ রাস্তার ওপর ছিটকে পড়ে। এসময় স্থানীয়রা দ্রুত ট্রাকটি ধাওয়া করে সেটি আটক করে। এরপর তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এদিকে খবর পেয়ে প্রায় ২০ মিনিট পরে তাহেরপুর ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। এরপর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে তাকে। তবে এ মর্মান্তিক ঘটনার পরে আশপাশের হাজার হাজার লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তাদের মাঝে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print