সোমবার , ১৬ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » স্বাস্থ্য » চিরকালের জন্য চুল পড়া রোধ করুণ

চিরকালের জন্য চুল পড়া রোধ করুণ

helth 1চুল পড়া রোধ করতে চাইলে প্রথমে আপনাকে দুশ্চিন্তা দূর করতে হবে। চুল মানুষের সৌন্দর্যের একটা বড় মাপকাঠি। তাই চুল নিয়ে আমাদের আবেগটাও বেশি। ঠিক এ কারণেই চুল পড়লে বা মাথায় টাক পড়ে গেলে অনেকেই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। চুলের অতি সাধারণ কিছু যত্ন, বিশেষ করে ঘুমানোর আগে কিছু কাজ নিয়ম করে করলে চুল পড়া রোধ করা যায় অনেকখানি এবং আজীবনের জন্যই।

চুল পরিষ্কার রাখুন –
চুল পড়া রোধের প্রথম শর্ত হলো চুল পরিষ্কার রাখা। তাই সারাদিন বাইরে ধুলোময়লার ভেতর থাকার পর অবশ্যই বাড়ি ফিরে চুল পরিষ্কার করা উচিত। সকালে বা দিনের বেলা সম্ভব না হলে রাতের গোসলের সময় শ্যাম্পু করুন। প্রতিদিন ব্যবহারের জন্য মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। ঘুমানোর আগে অবশ্যই চুল শুকিয়ে ঘুমাবেন।

চুল আঁচড়ান –
বাইরে থেকে ফেরার পর যদি চুল ধোয়া সম্ভব না হয় তাহলে প্রথমে চিরুনী দিয়ে চুল ভালো করে আঁচড়ে জট ছাড়িয়ে নিন। এর পর চিরুনী পানিতে ভিজিয়ে নিয়ে তারপর চুল আঁচড়ান। চুলে আটকে থাকা আলগা ধুলো চিরুনীর সাথে উঠে আসবে। আবার চিরুনী ধুয়ে নিয়ে একইভাবে চুল আঁচড়ান।

চুল বেঁধে ঘুমান –
মানুষের গড়ে প্রতিদিন ১০০টা পর্যন্ত চুল পড়ে যেতে পারে। এবং বেশির ভাগ চুল পড়ে যায় রাতের বেলা, বালিশের সাথে চুলের ঘষা লেগে। রাতে চুল বেঁধে ঘুমান, বিশেষ করে যাঁদের বড় চুল। তাহলে চুল কম পড়বে। অনেকেই আছেন যাঁরা চুল বেঁধে ঘুমাতে পারেন না, অস্বস্তিবোধ করেন। আবার অনেকের মাইগ্রেন আছে বলে চুল বেঁধে ঘুমালে মাথাব্যথা করে। যাঁদের চুল বেঁধে ঘুমাতে সমস্যা তাঁরা ঘুমাতে যাবার আগে চুল ভালো করে আঁচড়ে নিন। চুলে জটা থাকলে চুল পড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

চুল শুকনো রাখুন –
যাঁরা অতিরিক্ত ঘামেন তাঁদের চুল পড়ে যায় বেশি। এমনভাবে ঘুমান যাতে ফ্যানের বাতাস মাথায় লাগতে পারে। রাতে মাথার ত্বক ঘামলে চুলের গোড়া দুর্বল হয়ে যায় এবং চুল আরো বেশি পড়ে যায়। গোসলের পর এক মগ পানিতে ৩ চা চামচ গোলাপজল মিশিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের গোড়া কম ঘামবে।

তেল লাগান –
পরের দিন ঝরঝরে চুল পেতে চাইলে আগের দিন রাতে চুলে তেল লাগান এবং পরদিন শ্যাম্পু করুন। অলিভ অয়েল বা নারকেল তেল কুসুম গরম করে চুলের গোড়ায় লাগান। আলতো হাতে মাসাজ করুন। এতে ঘুম যেমন ভালো হবে তেমনি মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন ভালো হওয়ায় শ্যাম্পু করার সময় চুলও পড়বে কম।

সাধারণত বর্ষা ঋতুতে সবারই চুল পড়ে। তবে কারো ক্ষেত্রে চুল পড়ার হার বেশি কারো কম। সাধারণ কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখলে আপনি নিজেই এই চুল পড়া রোধ করতে পারেন। আসুন তবে দেখে নেয়া যাক।

  • বৃষ্টির এই সময়টাতে শীতল সকালের আড়ষ্ঠতা ভাঙতে গরম পানিতে গোসল করা বেশ স্বস্তিদায়ক। নিয়মিত গরম পানি মাথায় লেগে চুল পড়ার হার বাড়িয়ে দেয়।
  • চুল পড়া রোধ করতে পর্যাপ্ত পরিমানে পানি পান উপকারী ভূমিকা পালন করে।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করাও চুল পড়া রোধ করতে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত চুলের আগা ছাটতে হবে। পছন্দের কাটে চুলের সাজিয়ে রাখলে চুল পড়া কমে আসে।
  • প্রতিবার শ্যাম্পু করার আগে মৃদু উষ্ণ তেলে চুলের গোড়া ম্যাসাজ করুন। মাথার চামড়ার ওপর নরম ম্যাসাজ চুলের গোড়ায় রক্ত চলাচল বাড়ায়, যা চুলের জন্য ভালো।
  • সব সময় গোড়া শক্ত করে চুল বাঁধা ঠিক নয়। এতে চুল পড়ার সমস্যা বেশি হয়।
  • চুল পড়তে থাকলে চুলে তেল দেয়া বন্ধ করতে পারেন।
  • আয়রন ট্যাবলেট গ্রহণ করতে পারেন, সবুজ এবং হলুদ সবজি ও ফল বেশি করে খেলে উপকার পাবেন।
  • প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার যেমন ডিমের সাদা অংশ, ভেড়ার মাংস, সয়াবিন, পনির, দুধ, কাঁচা ছোলা এবং দই চুলের জন্য উপকারী।
  • চুলে হিট দিলে তা চুলের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। তাই হিট বন্ধ করুন।
  • সূর্যের তাপ পরিহার করা ভালো।
  • চিকন হওয়ার জন্য অতিরিক্ত ডায়েট কন্ট্রোল চুলের জন্য ক্ষতিকর।
  • ধূমপান চুলের জন্যও ক্ষতিকর।
  • ভিটামিন সি, ই এবং বিটা ক্যারোটিন চুলের জন্য ভালো।
  • মেডিটেশন এবং যোগব্যায়াম মানসিক চাপ কমায়, যা চুলের জন্যও ভালো।
  • চিরুনির ফাঁক হওয়া উচিৎ বড়। ঘন দাঁতওয়ালা চিরুনি ব্যবহার করলে চুল বেশি ছিড়ে যায়।
  • চুলে রঙ করা এবং সোজাকরণ চুলের জন্য ক্ষতি হতে পারে।
  • উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত জাঙ্ক ফুডে চুল শক্ত হলেও ভঙ্গুর হয়ে যায়।
  • জেনেটিক, হরমোন পরিবর্তন বা মা হওয়ার পর চুল পড়ার সমস্যা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ভেজা চুলে চিরুনি দেবেন না।

আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print