সোমবার , ২৩ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » সাম্প্রতিক খবর » মাকে কাছে পাচ্ছে গুলিবিদ্ধ সেই শিশুটি

মাকে কাছে পাচ্ছে গুলিবিদ্ধ সেই শিশুটি

নাজমা-বেগম মাগুরায় ছাত্রলীগের সংঘর্ষে মাতৃগর্ভে বুলেটবিদ্ধ শিশুটির মা নাজমা বেগমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে স্বজনরা একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে মাগুরা সদর হাসপাতাল থেকে নাজমা বেগমকে নিয়ে আসে। আর গত ২৫ জুলাই গুলিবিদ্ধ কন্যা শিশুটিকে মাগুরা থেকে ঢামেক হাসপাতালে এনে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছিল।

অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নাজমা বেগম। তিনি বলেন, ‘আমার খুব ভালো লাগছে যে, আমার মনিকে দেখতে পাবো। দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই মনির জন্য এবং আমার জন্য। আর সরকারে কাছে আবেদন, যারা আমার বাচ্চাকে গুলি করেছে তাদের যেন সুষ্ঠু বিচার হয়।’

পরে নাজমা বেগমকে ঢামেক হাসপাতালের ২১২ নম্বর গাইনি ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয়। আর শিশুটি আগে থেকেই ঢামেক হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি আছে।

এদিকে গুলিবিদ্ধ শিশুটির বাবা বাচ্চু মিয়া জানান, মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে আজিবুর এবং আলী তার স্ত্রীকে গুলি করে।

এসময় তিনি সরকারের কাছে এ ঘটনার বিচার চেয়ে বলেন, ‘আমি একজন ক্ষুদ্রব্যবসায়ী। আমার স্ত্রী-সন্তানকে উপযুক্ত চিকিৎসা করাতে পারবো কিনা জানি না। চিকিৎসার জন্য সরকারে যদি সহায়তা করতো তাহলে বাঁচতাম।’ এ ঘটনায় লোকজন তাকে মামলা না করার জন্য হুমকি দিচ্ছে বলে জানান তিনি।

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আমজাদ হোসেন বলেন, ‘নাজমা বেগম আসছে এ খবর পেয়ে আমরা আগে থেকেই সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। তার সর্বোচ্চ চিকিৎসার জন্যও আমরা প্রস্তুত আছি।’

প্রসঙ্গত, গত ২৩ জুলাই মাগুরা শহরের দোয়ারপাড় এলাকায় ছাত্রলীগের দুইগ্রুপের সংঘর্ষে মায়ের গর্ভে গুলিবিদ্ধ হয় শিশুটি। বুলেট মায়ের শরীর ভেদ করে শিশুটিরও শরীর ভেদ করে। বুলেটটি পেট দিয়ে বের হয়ে আঘাত হানে তার ডান চোখেও। তখন গর্ভের বয়স সাত মাস মাত্র। ওই রাতেই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নাজমার গুলিবিদ্ধ শিশুটিকে ভূমিষ্ঠ করানো হয়। শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় দুদিন পর গত রোববার তাকে ঢামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। গত ২৮ জুলাই নয় সদস্যের ‘মেডিকেল বোর্ড’ গঠন করে ঢামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print