বুধবার , ১৮ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » কলেজ » যে কারণে ফল দিতে দেরি, পেছাবে সব সময়সূচি

যে কারণে ফল দিতে দেরি, পেছাবে সব সময়সূচি

1118শুরু থেকেই অভিযোগের স্তুপ জমতে থাকে শিক্ষাবোর্ডগুলোয়। আগেই আবেদন হয়ে যাওয়া, টাকা না যাওয়াসহ নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় শিক্ষার্থীদের। যার জন্য আবেদনের সময়সীমা বাড়নো হয় তিনদিন। সেসব সমস্যার পর ফল প্রকাশে গিয়ে ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার শিকার হতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। নির্ধারিত দিনের তিনদিন পার হলেও এখনো একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি আবেদন ফল প্রকাশ করতে পারেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আগামীকাল রোববার ফল প্রকাশ হবে জানালেও, কখন হবে বা আদৌ হবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে।

কেন ফল প্রকাশে এ বিলম্ব- এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানা গেলো, একাদশ শ্রেণীর ভর্তি আবেদনের কারিগরি কাজ করছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) আইআইসিটি বিভাগ। তারাই ভর্তি আবেদনের ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে সব সফটওয়ার তৈরি ও কারিগরি কাজ করেছে। কিন্তু সে সফটওয়ারের নানা ত্রুটির কারণে ফল প্রকাশে বিলম্ব হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা।

এর পাশাপাশি প্রচুর শিক্ষার্থী ভর্তির আবেদন করাতেও কিছু সমস্যা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি প্রক্রিয়ার ওয়েবসাইটটি (www.xiclassadmission.gov.bd) হ্যাকও হয়েছিল। যদিও সংশ্লিষ্টরা তা অস্বীকার করেন।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক ড. আসফাকুস সালেহীন  বলেন, ‘কারিগরি ত্রুটির কারণে ফল প্রকাশে বিলম্ব হচ্ছে। মূলত, বুয়েটের দলটি যে সফটওয়ার তৈরি করেছে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য, সেখানকার কিছু প্রোগ্রাম ঠিকমতো রান করছে না। ফলে ত্রুটি দেখা দিয়েছে। তারা সর্বাত্মক চেষ্টা করছে সব ত্রুটি দূর করতে। আশা করছি শনিবারের মধ্যে আমাদের সব কাজ শেষ হবে। আর রোববারের মধ্যেই আমরা প্রথম মেধাতালিতা প্রকাশ করতে পারবো।’

এদিকে, ২৫ জুন রাত সাড়ে ১১টায় কলেজে ভর্তির ফলাফল প্রকাশ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে সময় ওয়েবসাইটে ঢুকে শিক্ষার্থীরা দেখতে পান, সাইটটির নাজুক নিরাপত্তা নিয়ে রসিকতা করে কে বা কারা হ্যাক করেছে। তবে এ বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন ড. আসফাকুস সালেহীন।

পিছিয়ে যাচ্ছে সব সময়সূচি
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ঘোষণা দিয়েছিলেন, ১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণীর ক্লাস শুরু হবে। কিন্তু সে সময়সূচি পিছিয়ে যাচ্ছে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। কারণ, ২৭ জুন থেকে ভর্তি প্রক্রিয়ার কাজ শুরু হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু তিন দফা পিছিয়ে এখন ফল প্রকাশ হবে ২৮ জুন। অর্থাৎ এখানে যে দিনগুলো নষ্ট হয়েছে, সেগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে ভর্তির অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন আসফাকুস সালেহীন।

তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমাদের ২৫ তারিখ ফল ঘোষণা করার কথা ছিল, সেখানে আমরা তিনদিন পিছিয়ে গেছি। আমরা চেষ্টা করবো যেন ১ জুলাই থেকেই ক্লাস শুরু করা যায়। কিন্তু ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করে তো আর ক্লাস শুরু করা যাবে না। আমরা তারপরও চেষ্টা করে চলছি।’

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর গত ৬ জুন থেকে অনলাইন ও এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন গ্রহণ শুরু হয়। প্রথমে ১৮ জুন পর্যন্ত আবেদন নেয়ার কথা থাকলেও নানা অভিযোগের কারণে তা তিনদিন বাড়িয়ে ২১ জুন পর্যন্ত করা হয়। ওইদিন রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত সারাদেশে কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করে ১১ লাখ ৫৬ হাজার শিক্ষার্থী। প্রথম মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্তরা ২৭ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত বিলম্ব ফি ব্যতিত ভর্তি হওয়ার কথা। আর বিলম্ব ফি দিয়ে ২৬ জুলাই পর্যন্ত ভর্তি চলবে। দ্বিতীয় মেধা তালিকা প্রকাশ করার কথা রয়েছে ২ জুলাই। আর ১ জুলাই একাদশ শ্রেণীর ক্লাস শুরু হওয়ার কথা ছিল।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print