মঙ্গলবার , ২৪ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » বেসরকারি » স্কুলের রাসায়নিক চুরি করে অপহরণের পরিকল্পনা!

স্কুলের রাসায়নিক চুরি করে অপহরণের পরিকল্পনা!

Bogra-Zila-School-Students-BMউত্তরবঙ্গের শ্রেষ্ঠ এবং ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বগুড়া জিলা স্কুল। দেশের অনেক গুণীজনই ছিলেন এ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র। কিন্তু ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে চুরির অভিযোগে চার ছাত্র আটক হওয়ার পর।

বগুড়া জিলা স্কুলের চার ছাত্রসহ ৫ জনকে পুলিশ আটক করেছে। তাদের হেফাজত থেকে উদ্ধার করা হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সময়ে চুরি হওয়া পাঁচ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের মালামাল।

শুধু তাই নয়, আটককৃতরা পুলিশের কাছে দেয়া জবানবন্দিতে জানিয়েছে ভয়ঙ্কর পরিকল্পনার কথা। তারা পড়ালেখার পাশাপাশি শহরের বড় বড় প্রতিষ্ঠানে চুরি করার পরিকল্পনা করেছিল। আরো ভয়ঙ্কর পরিকল্পনার মধ্যে ছিল, স্কুলের এক ছাত্রকে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়। সে কথাও তারা ফাঁস করে দিয়েছে।

আটককৃতরা হলো- বগুড়া জেলা শহরের মালতিনগরের সহিদুজ্জামানের ছেলে হোসাইন আহম্মেদ সেফিন, ফুলতলা এলাকার হুমায়ুন কবীর খানের ছেলে রেজওয়ান খান, শাহ মো. লিয়াকত আলরি ছেলে শাহ মো. ফাইম, জলেশ্বরীতলার আব্দুল হান্নানের ছেলে সেরাজুল মনির রুপক। এরা সবাই বগুড়া জিলা স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্র। অপর একজন রাফিউর রহমান রাফি (১৭) আদমদীঘি উপজেলায় একটি স্কুলে লেখাপড়া করে। সে শাজাহানপুর উপজেলার পারতেখুর গ্রামের সাজ্জাদুর হোসেন সাজুর ছেলে।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে স্কুলের কেয়ারটেকার বেল্লাল হোসেন স্কাউট ভবনের একটি কক্ষের জানালা দিয়ে ভেতরে একজনকে মালামাল চুরি করতে দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি দরজা বন্ধ করে দিয়ে রাফিউর রহমান রাফি নামের ওই তরুণকে আটক করেন। পরে সদর থানা পুলিশে সোপর্দ করেন।

রাতে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর অনেক তথ্য এবং ঘটনায় জড়িতদের নাম পরিচয়। পরে পুলিশ রাতভর রাফিকে নিয়ে অভিযান চালায়। অভিযানকালে আটক হয় জিলা স্কুলের চার ছাত্র সেফিন, রেজওয়ান খান, ফাইম ও রুপক। তাদের হেফাজত থেকে উদ্ধার করা হয় স্কুলের বিজ্ঞানাগার থেকে বিভিন্ন সময়ে চুরি করা সরঞ্জাম। যার আনুমানিক মূল্য ৫ লক্ষাধিক টাকা বলে জানায় পুলিশ।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print