শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » বেসরকারি » ব্রাশফায়ারে ৩ ইউপিডিএফ কর্মীকে হত্যা

ব্রাশফায়ারে ৩ ইউপিডিএফ কর্মীকে হত্যা

updfরাঙ্গামাটির লংগদুতে সন্তু লারমার জেএসএস কর্মীদের ব্রাশফায়ারে ইউপিডিএফের তিন কর্মী নিহত হয়েছেন। তবে স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, এ ঘটনায় অন্তত চার জন নিহত হয়েছেন।

রোববার সকাল সাড়ে ৬টায় লংগদু উপজেলার হারিকাতা বেগুনছড়া (ভাইবোন ছড়া) এলাকার গোল্লাছড়ি নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- যুদ্ধমণি চাকমা (৪০), রূপময় চাকমা (৩৪) ও সুমন চাকমা (৩১)।

নিহত যুদ্ধমণি চাকমা লংগদু উপজেলার বড় কাট্টলীর বেগুনছড়া এলাকার ফুলমণি চাকমার ছেলে, রূপময় চাকমা বড় গাবতলীর গোল্লাছড়ি এলাকার রুস্তম চাকমা ছেলে এবং সুমন চাকমা নানিয়ারচর উপজেলাধীন সাবেক্ষ্যং ইউনিয়নের করল্যাছড়ি গ্রামের নরায়ণ চাকমার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গোল্লাছড়ি এলাকাটি ইউপিডিএফ নিয়ন্ত্রিত। গত কয়েক মাসে ওই এলাকাটি দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠে জেএসএস। এর আগেও সেখানে প্রায় সময় গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে। রোববার সকালে কোনো প্রকার আগাম ইঙ্গিত ছাড়াই গ্রামে প্রবেশ করেন জেএসএস কর্মীরা। এ সময় প্রস্তুতি ছাড়াই বেকায়দায় পড়েন ইউপিডিএফ কর্মীরা। পরে তাদের একটি ঘরের মধ্যে ঘেরাও করে ফেলে জেএসএস কর্মীরা।

এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ শুরু হলে ঘরের সামনেই গুলিবিদ্ধ হয়ে তিন ইউপিডিএফ কর্মী নিহত হন। পরে জেএসএস কর্মীরা ঘরটিতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে চলে যান।

ইউপিডিএফ সমর্থিত পিসিবি সভাপতি বাবলু চাকমা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ভোর সাড়ে ৬টায় সন্তু লারমার জেএসএস সশস্ত্র গ্রুপের সন্ত্রাসীরা লংগদু উপজেলার গোল্লাছড়ি এলাকায় হঠাৎ করেই এলোপাথাড়ি ব্রাশফায়ার করলে ঘটনাস্থলেই যুদ্ধমণি চাকমা, রূপময় চাকমা ও সুমন চাকমা মারা যান। এ সময় একটি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। গফরটিতে তাদের বেশ কয়েকজন কর্মী দলীয় কাজে গিয়ে রাতে অবস্থান করছিলেন বলেও জানান তিনি।

ইউপিডিএফ নেতা মাইকেল চাকমা তিন জন নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, সন্তু লারমার সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা গ্রামে প্রবেশ করে ব্রাশফায়ার করলে এ ঘটনা ঘটে। জেএসএস সন্ত্রাসীরা যে ঘরটিতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে সেটিতে বেশ কয়েকজন নারী ও শিশু ছিল। তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে দাবি করেন তিনি।

তবে ঘটনার সঙ্গে নিজেরা জড়িত নয় দাবি করে জেএসএস নেতা সজীব চাকমা জানান, দলীয় কোন্দলেই ইউপিডিএফের কর্মীরা নিহত হয়েছেন।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print