রবিবার , ২২ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » ফুটবল » ইন্দোনেশিয়ার সিনাবাং আগ্নেয়গিরি ভয়ঙ্করভাবে সক্রিয় হচ্ছে

ইন্দোনেশিয়ার সিনাবাং আগ্নেয়গিরি ভয়ঙ্করভাবে সক্রিয় হচ্ছে

Mount-Sinabung-1গত ২ জুন থেকে ছাই ও ধুঁয়া উদ্গীরণ করথে থাকা পশ্চিম ইন্দোনেশিয়ার সিনাবাং আগ্নেয়গিরি আজ শনিবার ভয়ঙ্করভাবে সক্রিয় হয়ে উঠেছে এবং ব্যাপকভাবে ইদ্গীরণ শুরু করছে যা উর্ধাকাশে প্রায় দুই কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত হচ্ছে এবং পর্বতটির চতুর্দিকের ঢালে ছাই বৃষ্টি হচ্ছে।

সরকারী কর্মকর্তা উইন্ডি ছায়া জানান, সুমাত্রা দ্বীপরে সিনাবাং আগ্নেয়গিরির জ্বলামুখটি ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ২,৪৬০ মিটার বা ৮,০৭০ ফুট উঁচুতে অবস্থিত। ইন্দোনেশিয়া কর্তৃপক্ষ ২ জুনই সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি সতর্কতা জারী করে এবং আশপাশের ৭ কিলোমিটার ব্যাসার্ধের ভিতরের এলাকা থেকে কমবেশী ২,৭০০ অধিবাসীকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

তিনি জানান, তবে কেউ এখনও হতাহত হয়নি।

ছায়া জানান, শনিবার অগ্নুৎপাতের সাথে ভূমিকম্প হয়েছে এবং পর্বতের মাথায় ১১টি ঝাকুনি বা এ্যাভালাঞ্চে উর্ধাকাশে প্রায় দুই কিলোমিটার পর্যন্ত উত্তপ্ত ছাই উদ্গীরণ ও ছাই-বৃষ্টি হয়েছে।

আগ্নেয়গিরিবিদগণ বলছেন, যে কোন সময় উত্তপ্ত গ্যাস ও পাথরের বোল্ডার জ্বালামুখ থেকে নিচে নেমে আসতে পারে, এমন কি লাভা স্রোতও নেমে আসতে পারে।

ইন্দোনেশিয়ার ১৩০টি সক্রিয় আগ্নেয়গিরির মধ্যে সিনাবাং অন্যতম এবং এটার অবস্থান প্রশান্ত মহাসাগরের “অগ্নিচক্রের” উপরে হওয়ায় এর উদ্গীরণ প্রবণতা অনেক বেশী। প্রশান্ত মহাসাগরের “অগ্নিচক্রের” চতুর্দিকেই ঐ অঞ্চলের প্রধান প্রধান আগ্নেয়গিরি ও ফল্টলাইনগুলোর অবস্থান।

 

২০১০ সালে এই আগ্নেয়গিরিটি থেমে থেমে লাভা উদ্গীরণ করেছিল। এছাড়া গত বছর (২০১৪) এর উদ্গীরণে ১৭ জন নিহত হয়েছিল।

 

 


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print