শুক্রবার , ২৭ এপ্রিল ২০১৮
মূলপাতা » বেসরকারি » ব্যাংক থেকে গ্রাহকের টাকা উধাও!

ব্যাংক থেকে গ্রাহকের টাকা উধাও!

st-bankস্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক বিশ্বনাথ শাখা থেকে এক গ্রাহকের প্রায় সাড়ে আট লাখ টাকা উধাও হয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক ও ক্যাশিয়ারের যোগসাজশে ওই টাকা উধাও হয়েছে বলে ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ব্যাংকের বিশ্বনাথ শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক হোসেইন আহমদ পাপ্পু ও ক্যাশিয়ার সালাহ উদ্দিনকে ক্লোজ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ব্যাংকের গ্রাহক ও উপজেলা সদরের আল-হেরা শপিং সিটির অপরূপা ফ্যাশনের পরিচালক রাসেল আহমদ ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর পাঁচ লাখ টাকা, ২৪ ডিসেম্বর তিন লাখ টাকা ও ৫০ হাজার টাকা ( মোট সাড়ে ৮লাখ টাকা) স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক বিশ্বনাথ শাখায় তার একাউন্টে (হিসাব নং-০৪৫৩৩০০০২০৬) জমা দেন। কিন্তু রাসেল অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দিলেও সে টাকা মূল হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

রাসেল আহমদ গত ৫মে ব্যাংকে টাকা উত্তোলন করতে গেলে তার অ্যাকাউন্টে কোন টাকা নেই বলে জানানো হয়। এতে তার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। বিষয়টি ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে তিনি লিখিতভাবে জানান।ওইদিন রাতেই ব্যাংকের বিশ্বনাথ শাখার তৎকালীন ব্যবস্থাপক হোসেইন আহমদ পাপ্পুকে বিয়ানীবাজার শাখার ব্যবস্থাপকের পদ থেকে ও বিশ্বনাথ শাখার ক্যাশিয়ার সালাহ উদ্দিনকে ক্লোজ করা হয়।

রাসেল আহমদের অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলেছে, বিষয়টি তদন্ত করে অবশ্যই গ্রাহকের টাকা দেয়া হবে। এজন্য একটু সময় লাগবে।

ব্যাংকের বিশ্বনাথ শাখার বর্তমান ব্যবস্থাপক সুজিত চন্দ্র দাশ বলেন, কিছু সমস্যা আছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গ্রাহক টাকা পাবেন।কিন্তু সময় লাগবে। সাবেক ব্যবস্থাপক ও ক্যাশিয়ারকে ক্লোজ করে সিলেট শাখায় নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

রাসেল আহমদ জানান, এ বিষয়ে তিনি গত ৫মে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক সিলেট রিজিওনে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত ব্যাংক টাকা দিচ্ছে না । তিনি বলেন, ব্যাংক বলছে কিছু সময় লাগবে।

এ ব্যাপারে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক বিশ্বনাথ শাখার সাবেক ব্যবস্থাপকের মুঠোফোনে (০১৭৩০০১৫১১৪) বারবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ক্যাশিয়ার সালাহউদ্দিন আহমদের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের এস.এ ভিপি পারভেজ মাহফুজ বলেন, সাবেক ব্যবস্থাপক হোসেইন আহমদ পাপ্পু ও ক্যাশিয়ার সালাহউদ্দিন দুর্নীতি করেছেন। তিনি বলেন, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে।

গ্রাহক টাকা পাবে কি পাবে না এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অবশ্যই টাকা পাবেন, যেহেতু গ্রাহকের কাছে প্রমাণ রয়েছে। তবে কিছুটা সময় লাগবে।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print