শুক্রবার , ২০ জুলাই ২০১৮
মূলপাতা » প্রধান খবর » বৈশ্বিক উষ্ণতা: আর্কটিক মহাসাগরে বড় পরিবর্তনের আভাস

বৈশ্বিক উষ্ণতা: আর্কটিক মহাসাগরে বড় পরিবর্তনের আভাস

বরফ গলাজলবায়ু পরিবর্তনের বড় প্রভাব পড়ছে আর্কটিক মহাসাগরে। গ্রীষ্মের উষ্ণতায় বিস্তীর্ণ এ জলারশির উপরের বরফ গলছে; যার নেতিবাচক পরিণতি হতে পারে আশঙ্কাজনক। ঋতুভেদে আর্কটিক মহাসাগরের বরফরাজ্যে এ পরিবর্তনের বিষয়ে গবেষণা পরিচালনা করছে দ্য নরওয়েজিয়ান পোলার ইনস্টিটিউট। খবর বিবিসি।

কয়েক বছর ধরে রক্ত জমিয়ে দেয়া শীতের মধ্যেও উত্তর মেরুতে অভিযান চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। তারা গবেষণা চালাচ্ছেন প্রচণ্ড ঠাণ্ডা আর অন্ধকার উপেক্ষা করেই। তাদের কাজে সহায়তায় ঘন বরফের ভেতর উত্তর সাগরে ভাসছে গবেষণা জাহাজ দ্য ল্যান্স।

বিজ্ঞানীদের পর্যবেক্ষণ বলছে, গলে আরো হালকা হয়ে এসেছে ঘন বরফের স্তর। পরের গ্রীষ্মগুলোয় জীববৈচিত্র্যের ওপর এর প্রভাব থাকবে ব্যাপক। ইনস্টিটিউটের পরিচালক ইয়ান গুনার ভিন্থার জানিয়েছেন, এ গবেষণার উদ্দেশ্য হলো ভবিষ্যতে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলার জন্য উত্তর সাগরে আবহাওয়া ও জীববৈচিত্র্যের শীতকালীন পরিস্থিতি বোঝা দরকার। তিনি বলেন, ‘উত্তর মহাসাগরের শীতকাল নিয়ে আমাদের কাছে যে তথ্য আছে, তা মোটেও পর্যাপ্ত নয়। এজন্য শীতের প্রথম দিকে বরফ জমা শুরু হওয়ার পর থেকে গ্রীষ্মের বরফ গলার সময় পর্যন্ত আমাদের পর্যবেক্ষণ করতে হবে। পরিবেশগতভাবে শুরু হয়েছে নতুন যুগ। প্রচলিত আবহাওয়া মডেলে এ নতুন সময় বা বরফের পরিস্থিতি নিয়ে কোনো তথ্যই নেই। এ কারণে আমাদের পুরনো বরফ স্তর থেকে নতুন হালকা স্তর সবই পর্যবেক্ষণ করতে হবে।’

সাধারণত একস্তর বরফের তুলনায় বহুস্তর বরফের ভেতর জীববৈচিত্র্যের প্রাচুর্য বেশি। এ কারণে এখানে বাস্তুসংস্থানও অনেক জটিল। বিশ্বব্যাপী তাপমাত্রা বাড়ার ফলে হুমকির সম্মুখীন এখানকার প্রাণিবৈচিত্র্য।

তবে বরফ গলা শুরু হওয়ায় উত্তর মহাসাগরের জীববৈচিত্র্যের ওপর এর প্রভাবের জটিলতা আসলে অন্য জায়গায়। বরফ গলার কারণে বাসস্থান হারাচ্ছে অনেক প্রাণী। ফলে তারা সংখ্যায় কমে যাচ্ছে। অন্যদিকে সমুদ্রের তলদেশে সূর্যের আলো প্রবেশ করছে আগের চেয়ে অনেক বেশি। এতে লাভবান হচ্ছে উত্তর সাগরের জলজ প্রাণবৈচিত্র্য।


আপনার মতামত

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*


Email
Print